Job exam Preparation 2021 কিছু সংক্ষিপ্ত শব্দের Full Meaning ।

By | March 24, 2021

Job exam Preparation 2021 has published a Notice on All categorizes post. It’s a lucrative job and it’s great chance to get job for job seeker. This job is perfect to build up a significant career. Those, who want to work,they should be taken out of this opportunity.

So choose your desired job circular and apply specific job to build up your career. When we get Admit card and Result link or news then we give download link of Admit and Result as you can easily download through our website. We also give you questions solution of the exam and all type of educational support through our website alljobscircularbd.com. So stay with our website alljobscircularbd.com.

এক নজরে বিভাগ গুলো

কিছু সংক্ষিপ্ত শব্দের Full Meaning ।
🏟 J.S.C – এর পূর্নরূপ — Junior School Certificate.
🏟 J.D.C – এর পূর্নরূপ — Junior Dakhil Certificate.
🏟 S.S.C – এর পূর্নরূপ — Secondary School Certificate.
🏟 H.S.C – এর পূর্নরূপ — Higher Secondary Certificate.
🏟 A.M – এর পূর্নরূপ — Ante meridiam.
🏟 P.M – এর পূর্নরূপ — Post meridiam.
🏟 B. A – এর পূর্নরূপ — Bachelor of Arts.
🏟 B.B.S – এর পূর্নরূপ — Bachelor of Business Studies.
🏟 B.S.S – এর পূর্নরূপ — Bachelor of Social Science.
🏟 B.B.A – এর পূর্নরূপ — Bachelor of Business Administration
🏟 M.B.A – এর পূর্নরূপ — এর পূর্নরূপ — Masters of Business Administration.
🏟 B.C.S – এর পূর্নরূপ — Bangladesh Civil Service.
🏟 M.A. – এর পূর্নরূপ — Master of Arts.
🏟 B.Sc. – এর পূর্নরূপ — Bachelor of Science.
🏟 M.Sc. – এর পূর্নরূপ — Master of Science.
🏟 B.Sc. Ag. – এর পূর্নরূপ — Bachelor of Science in Agriculture .
🏟 M.Sc.Ag.- এর পূর্নরূপ — Master of Science in Agriculture.
🏟 M.B.B.S. – এর পূর্নরূপ — Bachelor of Medicine and Bachelor of Surgery.
🏟 M.D. – এর পূর্নরূপ — Doctor of Medicine./ Managing director.
🏟 M.S. – এর পূর্নরূপ — Master of Surgery.
🏟 Ph.D./ D.Phil. – এর পূর্নরূপ — Doctor of Philosophy (Arts & Science)
🏟 D.Litt./Lit. – এর পূর্নরূপ — Doctor of Literature/ Doctor of Letters.
🏟 D.Sc. – এর পূর্নরূপ — Doctor of Science.
🏟 B.C.O.M – এর পূর্নরূপ — Bachelor of Commerce.
🏟 M.C.O.M – এর পূর্নরূপ — Master of Commerce.
🏟 B.ed – এর পূর্নরূপ — Bachelor of education.
🏟 M.P. – এর পূর্নরূপ — Member of Parliament.
🏟 M.L.A. – এর পূর্নরূপ — Member of Legislative Assembly.
🏟 M.L.C – এর পূর্নরূপ — Member of Legislative Council.
🏟 P.M. – এর পূর্নরূপ — Prime Minister.
🏟 V.P – এর পূর্নরূপ — Vice President./ Vice Principal.
🏟 V.C- এর পূর্নরূপ — Vice Chancellor.
🏟 D.C- এর পূর্নরূপ — District Commissioner/ Deputy Commissioner.
🏟 S.P- এর পূর্নরূপ — Police Super.
🏟 S.I – এর পূর্নরূপ — Sub Inspector Police
🏟 GPA – এর পূর্নরূপ কি? – Grade Point Average
🏟 Dr. – এর পূর্নরূপ — Doctor.
🏟 Mr. – এর পূর্নরূপ — Mister.
🏟 Mrs. – এর পূর্নরূপ — Mistress.
🏟 Miss – এর পূর্নরূপ — used before

There are 100 English short dialogs, which are used frequently.
📖 What’s up – কি খবর?
📖 Carry on – চালিয়ে যাও
📖Wow – বাহ, দারুন তো
📖 My goodness! – একি!
📖 How come – কি ব্যাপার?
📖 What a mess! – কি এক ঝামেলা!
📖 Oh shit – ধ্যাত্তেরি
📖 Yes, go on – হ্যা, বলতে থাক
📖 Oh dear! – বলো কী!
📖 Hi guys – হ্যালো বন্ধুরা
📖 Good job! – সাবাশ!
📖 So what? – তাতে কি?
📖 Oh, no! – এ হতে পারেনা!
📖 Pay attention! – মনোযোগ দিন!
📖 It’s your turn – এবার তোমার পালা
📖 I’m at a loss – কি বলব ভেবে পাচ্ছিনা!
📖 Heiya! It is you I see – আরে তুমি যে!
📖 Oh! come on – আহ! একটু বুঝতে চেষ্টা করো
📖 Definitely – অবশ্যই
📖 Let it pass – ছেড়ে দিন।
📖 Obviously – স্পষ্টত, সম্ভবত
📖 I’m off – আমি গেলাম।
📖 As if – যেন, কি যে হতো
📖 Damn it! – চুলায় যাক!
📖 Who knows! – কে জানে!
📖 Bullshit! – বাজে কথা
📖 But who cares! – কে ধারধারে!
📖 No more buts – আর কোন কিন্তু নয়
📖 How so – তা কি করে হয়?
📖 I think so – আমি তাই মনে করি
📖 Calm down – শান্ত হও
📖 Let’s have a look – চল দেখি
📖 Let’s run away – চলো এক্ষুনি পালাই
📖 I am getting wet – আমি ভিজে যাচ্ছি
📖 I don’t care! – আমার কিছু যায় আসেনা!
📖 How else – আর কিভাবে?
📖 Little by little – ক্রমান্বয়ে।
📖 Is it so! – তাই নাকি!
📖 If you do case – যদি আপনি চান
📖 Have a good day – ভাল একটি দিন কাটাও।
📖 Let’s sit somewhere – চল কোথাও বসি
📖 So far so good – এ পর্যন্ত সবই ভালো
📖 I tend to think – আমার কেন যেন মনে হয়।
📖 I suppose so – আমিও সেটা ধারণা করছি।
📖 I don’t mind – আমি কিছু মনে করি না।
📖 If so, so what – যদি তাই হয় তাতে কী
📖 Keep your word – তোমার কথা রেখো।
📖 Nothing is impossible – কোন কিছুই অসম্ভব নয়।
📖 Whatever (you want) – তুমি যা চাও।
📖 Whatever you do? – তুমি যা কর।
📖 Why should I care? – কেন আমি পরোয়া করব?
📖 Something else – অন্য কিছু।
📖 Nothing else – অন্য কিছুই না।
📖 Talk sense – চিন্তা করে কথা বল
📖 Don’t say anymore – আর কিছু বলো না।
📖 Forget it – ও ভুলে যাও।
📖 What a pity- কি দু:খজনক ।
📖 Hold on – লাইনে থাকুন
📖 Do it at once! – এক্ষুনি কর!
📖 Speak with care – সাবধানে কথা বল।
📖 How strange! – কি অদ্ভুত!
📖 By the grace of Allah – আল্লাহার রহমতে
📖 How absurd! – কি বাজে বকছো!
📖 Good riddance! – যাক বাচা গেল!
📖 Just for asking – চাইলেই পাওয়া যায়
📖 Stand in queue – লাইনে দাঁড়ান
📖 No smoking – ধূমপান নিষেধ
📖 Let me digress – একটু ভিন্ন প্রসঙ্গে যাওয়া যাক
📖 I swear I will – কসম আমি করব ।
📖 I give up – আমি ছেড়ে দিয়েছি ।
📖 Pardon me – ক্ষমা কর
📖 Who cares! – কার কি যায় আসে!
📖 Excuse me – এই যে শুনুন
📖 Not a bit – একটুও না
📖 That’s fantastic – এটা সত্যি চমৎকার
📖 Next to nothing – বলতে গেলে কিছুই না
📖 Mind your language – ভাষা সংযত করো
📖 Come to the point – আসল কথা বল
📖 Thats right – ঠিক বলেছেন
📖 To be frank – খোলাখুলি ভাবে বলতে গেলে।
📖 Really pleased – সত্যি আনন্দিত
📖 I am delighted- আমি আনন্দিত ।
📖 So kind of you! – আপনার দয়া।
📖 Anybody home? – বাড়িতে কেউ আছেন?
📖 Keep quiet – চুপ কর
📖 No entrance – প্রবেশ নিষেধ
📖 It’s enough – যথেষ্ট হয়েছ
📖 What happened – কি হয়েছে
📖 What an idea! – কি বুদ্ধি!
📖 Well done – সাবাশ
📖 Indeed! – সত্যি!
📖 How peaceful! – কি শান্ত!
📖 Get lost – বিদায় হোন।
📖 Let me see – আমাকে দেখতে দাও
📖 What a surprise!- হটাৎ যে!
📖 Go to the devil! – গোল্লায় যাক!
📖 What about you? – তোমার খবর কি?
📖 so so – মোটামোটি
📖 So be it – তবে তাই হোক
📖 Oh sure – ও নিশ্চয়ই

সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ শর্টকাট কী সিস্টেম
সিটিআরএল+এ । … … … … … … … … সব নির্বাচন করুন
সিটিআরএল+সি । … … … … … … … … কপি করুন
সিটিআরএল+এক্স । … … … … … … … … কাটুন
সিটিআরএল+ভি । … পেস্ট…
সিটিআরএল+জেড । … পূর্বাবস্থায়…
সিটিআরএল+বি । … … … … … … … … সাহসী
সিটিআরএল+ইউ । … … … … … … … … আন্ডারলাইন
সিটিআরএল+আই । … … … … … … … … ইতালিক
এফ । … … … … … … … … … … . সাহায্য করুন
এফ । … … … … … … … … … … নির্বাচিত বস্তুর নাম পুনঃনাম
এফ । … … … … … … … … … … সব ফাইল খুঁজে বের করুন
এফ । … … … … … … … … … … ডায়লগে ফাইল তালিকা ড্রপ-ডাউন খুলুন
এফ । … … … … … … … … … … রিফ্রেশ কারেন্ট উইন্ডো
এফ । … … … … … … … … … … উইন্ডোজ এক্সপ্লোরারে ফোকাস শিফট
এফ । … … … … … … … … … . মেনু বারের বিকল্পগুলি সক্রিয় করে
ALT+TAB. … … … … … … … . খোলা অ্যাপ্লিকেশনের মধ্যে সাইকেল
ALT+F4. … … … … … … … … প্রোগ্রাম ছাড়ুন, বর্তমান জানালা বন্ধ করুন
এএলটি+এফ । … … … … … … … … বর্তমান প্রোগ্রাম উইন্ডোজের মধ্যে পরিবর্তন করুন
ALT+ENTER. … … … … … … . সম্পত্তির সংলাপ খুলুন
ALT+SPACE. … … … … … … . বর্তমান উইন্ডোর জন্য সিস্টেম মেনু
এএলটি +¢. … … … … … … … … ডায়ালগ বক্সে ড্রপ-ডাউন তালিকা খুলছে
ব্যাকস্পেস । … … … … … … পিতামাতার ফোল্ডারে পরিবর্তন করুন
সিটিআরএল+ইএসসি । … … … … … … . শুরু মেনু খুলুন
সিটিআরএল+আল্ট+ডেল । … … … … . টাস্ক ম্যানেজার খুলুন, কম্পিউটার রিবুট করুন
সিটিআরএল+ত্যাব । … … … … … … . সম্পত্তি ট্যাবের মাধ্যমে স্থানান্তর
সিটিআরএল+শিফট+ড্র্যাগ । … … … শর্টকাট তৈরি করুন (এছাড়াও ডান-ক্লিক করুন, ড্র্যাগ করুন)
সিটিআরএল+ড্র্যাগ । … … … … … … কপি ফাইল
ইএসসি । … … … … … … … … … শেষ অনুষ্ঠান বাতিল করুন
শিফট । … … … … … … … … . চাপুন / ধরুন শিফট, অটো প্লে বাইপাস করতে সিডি-রম ঢুকান
শিফট+ড্র্যাগ । … … … … … . ফাইল সরান
শিফট+এফ … … … … … … . প্রসঙ্গ মেন্যু খোলা (ডান-ক্লিকের মত একই)
শিফট + ডিলেট । … … … … … সম্পূর্ণ মুছে ফেলা (বাইপাস রিসাইকেল বিন)
ALT+আন্ডারলাইনড চিঠি । … . সংশ্লিষ্ট মেনু খুলুন
পিসি কীবোর্ড শর্টকাট
ডকুমেন্ট কার্সার নিয়ন্ত্রণ
বাড়ি । … … … … … … . লাইনের শুরুতে বা মাঠ বা পর্দার অনেক দূরে
সমাপ্তি । … … … … … … … . লাইনের শেষ পর্যন্ত, অথবা মাঠ অথবা পর্দার অনেক অধিকার
সিটিআরএল+হোম … … … . শীর্ষে
সিটিআরএল+এন্ড । … … … … . নীচে
পেজ আপ । … … … … … ডকুমেন্ট বা ডায়ালগ বক্স এক পৃষ্ঠায়
পাতা ডাউন । … … … ডকুমেন্ট বা ডায়ালগ এক পৃষ্ঠায় নিচে নড়াচড়া
আরো কিস । … … … নথিপত্র, সংলাপ ইত্যাদিতে মনোনিবেশ করুন ।
সিটিআরএল+> । … … … … … . পরবর্তী শব্দ
সিটিআরএল+শিফট+> । … … . শব্দ নির্বাচন করে
উইন্ডোজ এক্সপ্লোরার ট্রি কন্ট্রোল
নিউমেরিক কেইপ্যাড * । … বর্তমান নির্বাচন অধীনে সব বিস্তার করুন
নিউমেরিক কেইপ্যাড + । … বর্তমান নির্বাচনকে প্রসারিত করে
নিউমেরিক কেইপ্যাড -. … বর্তমান নির্বাচন ভেঙ্গে পড়েছে
¦. … … … … … … … … . বর্তমান নির্বাচন প্রসারিত করুন অথবা প্রথম সন্তানের কাছে যান
‰. … … … … … … … … . বর্তমান নির্বাচন ধ্বংস করুন অথবা অভিভাবকের কাছে যান
বিশেষ চরিত্র
‘ একক উদ্ধৃতি খুলছে । … alt 0145
‘ একক উক্তি বন্ধ করছি । … . অল্ট 0146
′′ দ্বিগুণ উদ্ধৃতি খুলছে । … alt 0147
′′ দ্বিগুণ উদ্ধৃতি বন্ধ করছি । … . অল্ট 0148
– একটি ড্যাশ । … সবকিছু 0150
– ড্যাশে । ………………. অল্ট 0151
… এলিপ্সিস । … … … … … … … . অল্ট 0133
• বুলেট । … … … … … … … . অল্ট 0149
® নিবন্ধন মার্ক । … … … alt 0174
© কপিরাইট … … … … … … alt 0169
™ ট্রেডমার্ক … … … … … . অল্ট 0153
° ডিগ্রি চিহ্ন । … … … … alt 0176
¢ সেন্ট সাইন । … … … … … … alt 0162
1 ⁄ 4…. 0188
1 ⁄ 2…. 0189
3 ⁄ 4…. 0190
পিসি কীবোর্ড শর্টকাট
একটি অভিন্ন বিশ্বে অনন্য ছবি তৈরি! একটি অভিন্ন বিশ্বে অনন্য ছবি তৈরি!
হ্যাঁ, হ্যাঁ । ……… অল্ট 0233
হ্যাঁ, হ্যাঁ । ………………… alt 0201
ñ.. …………………… অল্ট 0241
÷…………. @MULTIPUNCT……. সবকিছু 0247
বর্তমান প্রোগ্রামে ফাইল মেনু অপশন
বর্তমান প্রোগ্রামে অল্ট + ই সম্পাদনা অপশন
এফ ইউনিভার্সাল হেল্প (সকল প্রোগ্রামের জন্য)
Ctrl + A সব টেক্সট নির্বাচন করুন
সিটিআরএল + এক্স কাট নির্বাচিত আইটেম
শিফট + ডেল কাট নির্বাচিত আইটেম
Ctrl + C কপি নির্বাচিত আইটেম
Ctrl + Ins কপি নির্বাচিত আইটেম
সিটিআরএল + ভি পেস্ট
শিফট + ইনস পেস্ট
বাড়ি যাও কারেন্ট লাইনের শুরুতে
Ctrl + বাড়ি ডকুমেন্টের শুরুতে যান
কারেন্ট লাইনের শেষে যাও
Ctrl + End ডকুমেন্টের শেষ দিকে যাও
শিফট + হোম হাইলাইট বর্তমান অবস্থান থেকে লাইনের শুরু পর্যন্ত
শিফট + এন্ড হাইলাইট বর্তমান অবস্থান থেকে শেষ পর্যন্ত
Ctrl + f একবারে একটি শব্দ বাম দিকে সরান
Ctrl + g একসাথে একটি শব্দ ডান দিকে সরান
মাইক্রোসফট ® উইন্ডোস ® শর্টকাট কিস
খোলা অ্যাপ্লিকেশনের মধ্যে অল্ট + ট্যাব সুইচ
সবকিছু +
শিফট + ট্যাব
খোলা মধ্যে পিছনের দিকে পরিবর্তন করুন
অ্যাপ্লিকেশন
অল্ট + প্রিন্ট
পর্দার পর্দা
বর্তমান প্রোগ্রামের জন্য স্ক্রিন শট তৈরি করুন
সিটিআরএল + অল্ট + ডেল রিবুট / উইন্ডোজ ® টাস্ক ম্যানেজার
Ctrl + Esc স্টার্ট মেনু আনুন
টাস্কবারে অ্যাপ্লিকেশনের মধ্যে অল্ট + এসসি সুইচ
এফ রিনেম নির্বাচিত আইকন
এফ ডেস্কটপ থেকে খুঁজে পাওয়া শুরু
এফ ব্রাউজিংয়ের সময় ড্রাইভ নির্বাচন খুলুন
এফ রিফ্রেশ বিষয়বস্তু
এলটি + এফ বন্ধ বর্তমান খোলা প্রোগ্রাম
Ctrl + F4 প্রোগ্রামে উইন্ডো বন্ধ
সিটিআরএল + আরো অনেক কিছু
চাবি
স্বয়ংক্রিয়ভাবে সমস্ত কলামের প্রস্থ সমন্বয় করুন
উইন্ডোজ এক্সপ্লোরারে
অল্ট + নির্বাচিত আইকনের খোলা সম্পত্তি উইন্ডোতে প্রবেশ করুন
অথবা প্রোগ্রাম
শিফট + এফ সিমুলেট ডান-নির্বাচিত আইটেমে ক্লিক করুন
শিফট + ডেল ডিলিট প্রোগ্রাম / ফাইল স্থায়ীভাবে
শিফট ধরে রাখা
বুটআপের সময়
বুট নিরাপদ মোড বা বাইপাস সিস্টেম ফাইল
শিফট ধরে রাখা
বুটআপের সময়
অডিও সিডিতে দেওয়ার সময়, প্রতিরোধ করবে
সিডি প্লেয়ার খেলা থেকে
উইঙ্কি শর্টকাটস
উইঙ্কি + ডি অন্যান্য উইন্ডোজের শীর্ষে ডেস্কটপ আনুন
উইঙ্কি + এম সব উইন্ডোজ কমিয়ে দাও
WINKEY +
শিফট + এম
উইঙ্কি + এম দ্বারা করা সর্বনিম্ন আকার পূর্বাবস্থা
এবং উইঙ্কি + ডি
উইঙ্কি + ই ওপেন মাইক্রোসফট এক্সপ্লোরার
উইঙ্কি + ট্যাব সাইকেল টাস্কবারে খোলা প্রোগ্রামের মাধ্যমে
উইঙ্কি + এফ উইন্ডোজ ডিসপ্লে ® অনুসন্ধান / ফিচার খুঁজুন
WINKEY +
সিটিআরএল + এফ
কম্পিউটারের উইন্ডোর অনুসন্ধান প্রদর্শন করুন
উইঙ্কি + এফ মাইক্রোসফট ডিসপ্লে ® উইন্ডোজ ® সাহায্য করুন
উইঙ্কি + আর রান উইন্ডো খুলুন
WINKEY +
বিরতি / বিরতি
সিস্টেম প্রপার্টিজ উইন্ডো খুলুন
উইঙ্কি + ইউ ওপেন ইউটিলিটি ম্যানেজার
উইঙ্কি + এল কম্পিউটার লক (উইন্ডোজ এক্সপি ® এবং পরে)
আউটলুক ® শর্টকাট কিস
অল্ট + এস ইমেইল পাঠান
Ctrl + C কপি নির্বাচিত টেক্সট
সিটিআরএল + এক্স কাট নির্বাচিত টেক্সট
Ctrl + P ওপেন প্রিন্ট ডায়ালগ বক্স
Ctrl + K সম্পূর্ণ নাম / ইমেইল টাইপ করা ঠিকানা বারে
সিটিআরএল + বি বোল্ড হাইলাইট করা নির্বাচন
সিটিআরএল + আমি হাইলাইট নির্বাচন ইটালিসাইজ করি
সিটিআরএল + আন্ডারলাইন হাইলাইট করা নির্বাচন
Ctrl + R একটি ইমেইলের উত্তর
Ctrl + F Forward একটি ইমেইল
Ctrl + N একটি নতুন ইমেইল তৈরি করুন
Ctrl + শিফট + A আপনার ক্যালেন্ডারে একটি নতুন অ্যাপয়েন্টমেন্ট তৈরি করুন
সিটিআরএল + শিফট + ও আউটবক্স খুলুন
সিটিআরএল + শিফট + আমি ইনবক্স খুলছি
সিটিআরএল + শিফট + কে একটি নতুন কাজ যোগ করুন
সিটিআরএল + শিফট + সি একটি নতুন যোগাযোগ তৈরি করুন
সিটিআরএল + শিফট + জে একটি নতুন জার্নাল এন্ট্রি তৈরি করুন
শব্দ ® শর্টকাট কিস
Ctrl + A পৃষ্ঠার সমস্ত বিষয়বস্তু নির্বাচন করুন
সিটিআরএল + বি বোল্ড হাইলাইট করা নির্বাচন
Ctrl + C কপি নির্বাচিত টেক্সট
সিটিআরএল + এক্স কাট নির্বাচিত টেক্সট
Ctrl + N নতুন / ফাঁকা ডকুমেন্ট খুলুন
Ctrl + O ওপেন অপশন
Ctrl + P প্রিন্ট উইন্ডো খুলুন
সিটিআরএল + এফ ওপেন বাক্স
সিটিআরএল + আমি হাইলাইট নির্বাচন ইটালিসাইজ করি
সিটিআরএল + কে ঢোকানোর লিঙ্ক
সিটিআরএল + আন্ডারলাইন হাইলাইট করা নির্বাচন
সিটিআরএল + ভি পেস্ট
Ctrl + Y Redo শেষ কর্ম সম্পাদন
সিটিআরএল + জেড শেষ পদক্ষেপ
সিটিআরএল + জি খুঁজে বের করুন এবং বিকল্প প্রতিস্থাপন করুন
Ctrl + H খুঁজে বের করুন এবং বিকল্প প্রতিস্থাপন করুন
সিটিআরএল + জে জাস্টিফাই প্যারাগ্রাফ এলাইনমেন্ট
Ctrl + L Align নির্বাচিত টেক্সট বা লাইন বাম দিকে
Ctrl + Q Align বাম দিকে নির্বাচিত প্যারাগ্রাফ
Ctrl + E Align নির্বাচিত হয়েছে

All keyboard shortcuts in Microsoft office
A to z
Ctrl + A = সিলেক্ট অল।
Ctrl + B = টেক্সট বোল্ড।
Ctrl + C = কোন কিছু কপি করা।
Ctrl + D = ফন্ট পরিবর্তনের ডায়ালগ বক্স
প্রদর্শন করা।
Ctrl + E = সেন্টার এলাইনমেন্ট করা।
Ctrl + F = কোন শব্দ খোঁজা বা
প্রতিস্থাপন করা।
Ctrl + G = গো টু কমান্ড।
Ctrl + H = রিপ্লেস কমান্ড।
Ctrl + I = টেক্সট ইটালিক।
Ctrl + J = টেক্সট জাস্টিফাইড
এলাইনমেন্ট করা।
Ctrl + K = হাইপারলিংক তৈরী করা।
Ctrl + L = টেক্সট লেফট এলাইনমেন্ট
করা।
Ctrl + M = ইনভেন্ট দেয়ার জন্য।
Ctrl + N = নতুন কোন ডকুমেন্ট খোলার
জন্য।
Ctrl + O = পূর্বে তৈরী করা কোন ফাইল
খোলার জন্য।
Ctrl + P = ডকুমেন্ট প্রিন্ট।
Ctrl + Q = প্যারাগ্রাফের মাঝে
স্পেসিং করার জন্য।
Ctrl + R = টেক্সটকে রাইট এলাইনমেন্ট
করা।
Ctrl + S = ফাইল সেভ।
Ctrl + T = ইনডেন্ট পরিবর্তন করার জন্য।
Ctrl + U = টেক্সট আন্ডারলাইন।
Ctrl + V = টেক্সট পেষ্ট করার জন্য।
Ctrl + W = ফাইল বন্ধ করার জন্য।
Ctrl + X = ডকুমেন্ট থেকে কিছু কাট্
করার জন্য।
Ctrl + Y = রিপিট করার জন্য।
Ctrl + Z = আন্ডু বা পূর্বের অবস্থায়
ফিরিয়ে আনা।
Alt+0131= ƒ (টাকা)
Alt+0165= ¥ (ইয়েন)
Alt+0177= ± (যোগবিয়োগ)
Alt+0215= × (গুণ)
Alt+Ctrl+T= ™ (ট্রেডমার্ক)
Alt+ Ctrl+R= ® (রেজিষ্টার্ড)
Alt+0163= £ (লীরা)
Alt+0128= € (পাউন্ড)
Alt+0247= ÷ (ভাগ)
Alt+248/0186= º (ফারেনহাইট)
F1 key ( সাহায্য পাওয়ার জন্য )
F2 key (রিনেম বা পুনর্নাম নির্ধারন)
F3 key (সার্চ )
F4 key ( ঠিকানা বা এড্রেস বার
দেখা )
F4 key (সক্রিয় তালিকা থেকে
আইটেমগুলো দেখা )
F5 key ( রিফ্রেস/ বিদ্যমান উইন্ডো
আপডেট করা)
F6 key ( ডেস্কটপ বা বিদ্যমান
উইন্ডোর আইটেমগুলোতে ঘুরাফিরা
করা)
F10 key (সক্রিয় প্রোগ্রামের মেনু
বার সক্রিয় করার জন্য )
Keyboard shortcuts, Computer key Shortcut-
CTRL+A (একই উন্ডোর সবকিছু একসাথে
বাছাই বা সিলেক্ট করার জন্য)
CTRL+C (কপি করুন)
CTRL+X (কাট করুন)
CTRL+V ( পেস্ট করুন )
CTRL+Z (আগের অবস্থায় ফিরে যান)
CTRL+SHIFT (শর্টকাট তৈরি করা)
CTRL+RIGHT ARROW (ইনসার্শন পয়েন্ট কে
পরের শব্দে নেয়া)
CTRL+LEFT ARROW ((ইনসার্শন পয়েন্ট কে
পূর্বের শব্দে নেয়া)
CTRL+DOWN ARROW (ইনসার্শন পয়েন্ট কে
পরের অনুচ্ছেদে নেয়া)
CTRL+UP ARROW ((ইনসার্শন পয়েন্ট কে
পূর্বের অনুচ্ছেদের প্রথমে নেয়া)
CTRL+TAB (বিদ্যমান ট্যাবগুলো
নড়াচড়া করা)
CTRL+ESC (স্টার্ট মেনুতে ফিরে
যাওয়া )
CTRL+SHIFT+TAB (ট্যাবগুলোতে
ঘুরাফিরা করার জন্য)
CTRL+SHIFT with any of the arrow keys
(টেক্সটকে হাইলাইট করা)
SHIFT+TAB ( অপশনগুলোর পেছনে
যাওয়া)
SHIFT with any of the arrow keys ( একই
উইন্ডোতে একসাথে অনেকগুলো
আইটেমকে বাছাই বা সিলেক্ট
করা)
SHIFT+DELETE (বাছাইকৃত
উপাদানগুলো permanently মুছে
ফেলা)
SHIFT+F10 ( বাছাইকৃত আইটেমগুলোর
জন্য শর্টকাট মেনু দেখা )
ALT+ENTER ( বাছাইকৃত আইটেম
এরপ্রোপার্টিজ দেখা )
ALT+F4 ( চলমান কোন প্রোগ্রাম বা
বিদ্যমান উইন্ডো বন্ধ করা )
ALT+SPACEBAR ( বিদ্যমান উইন্ডোর
শর্টকাট ওপেন করা )
ALT+TAB ( চলমান প্রোগ্রামগুলোতে
মুভ করা )
ALT+ESC ( চলমান প্রোগ্রামগুলোতে
ঘুরাফিরা )
ALT+SPACEBAR ( বিদ্যমান উইন্ডোর জন্য
সিস্টেম মেনু )
ALT+Underlined letter in a menu name
( সংশ্লিষ্ট মেনু দেখা )
Dialog Box (কীবোর্ড শর্টকাট)
BACKSPACE ( আগের মেনুতে ফিরে
যাওয়া)
ESC ( সম্প্রতিক কাজ শেষ করা )
Accessibility Keyboard Shortcuts
HOME (সক্রিয় উইন্ডোর উপরে যাওয়া)
END ( সক্রিয় উইন্ডোর উপরে যাওয়া)
Windows Logo +U (ইউটিলিটি
ম্যানাজার অন করা )
SHIFT five times (স্টিকি কী অন বা অফ
করা )
Right SHIFT for eight seconds ( ফিল্টার
কী অন বা অফ করা )
Left ALT+left SHIFT+PRINT SCREEN (হাই
কন্ট্রাসট অন বা অফ করা )
Left ALT+left SHIFT+NUM LOCK ( মাউস কী
অন বা অফ করা )
NUM LOCK for five seconds (টুগল কী অন বা
অফ করা )
NUM LOCK+Asterisk sign (*) (নির্বাচিত
ফোল্ডারের মধ্যের সব সাব-
ফোল্ডার দেখা )
NUM LOCK+Plus sign (+) (নির্বাচিত
ফোল্ডারের সকল কন্টেন্ট দেখা )
NUM LOCK+Minus sign (-) (নির্বাচিত
ফোল্ডারটি minimize করা
উইন্ডোজ ১০’র কিবোর্ড শর্টকাট
Windows key + A : অ্যাকশন সেন্টার
খুলবে।
Windows key + C : করটানা কণ্ঠ
নির্দেশনার জন্য তৈরি হবে।
Windows key + I : সেটিংস
অ্যাপ্লিকেশন খুলবে।
Windows key + S: করটানা চালু হবে।
Windows key + Tab টাস্ক ভিউ দেখা
যাবে।
Windows key + Ctrl + D :নতুন ভার্চুয়াল
ডেস্কটপ তৈরি হবে।
Windows key + Ctrl + F4 :চালু থাকা
ভার্চুয়াল ডেস্কটপ বন্ধ হবে।
Windows key + Ctrl + left or right arrow :
ভার্চুয়াল ডেস্কটপ বদলাবে।
সাধারণ শর্টকাট
Windows key (উইন্ডোজ ৭ ও পরের
সংস্করণ) : স্টার্টমেন্যু খুলবে/বন্ধ
হবে।
Windows key + X (উইন্ডোজ ৮.১ ও ১০) :
স্টার্ট বোতামে ডান কিক করলে
যে মেন্যু আসে, তা দেখা যাবে।
Windows key + left or right arrow (উইন্ডোজ
৭ ও পরের সংস্করণ) : চালু থাকা
উইন্ডোর ডানে-বাঁয়ের পর্দাজুড়ে
দেখা যাবে।
Windows key + E (উইন্ডোজ ৭ ও পরের
সংস্করণ) : দ্রুত ফাইল এক্সপ্লোরার
চালু করে ফাইলপত্রের কাজ করা
যাবে।
Windows key + L (উইন্ডোজ ৭ ও পরের
সংস্করণ) : ডেস্কটপ লক করা যাবে।
Alt + PrtScn (উইন্ডোজ ৭ ও পরের
সংস্করণ) : চালু থাকা উইন্ডোর
স্ক্রিনশট নেওয়া যাবে,
কিপবোর্ডে কপি করা যাবে।
Windosw key + Print Screen (উইন্ডোজ ৮.১ ও
১০) : ডেস্কটপের পুরো পর্দার ছবি
(স্ক্রিনশট) নেওয়া যাবে। এগুলো
জমা হবে Computer Picture screen shots ফোল্ডারে।

100 questions about constitution.
If you like it,then you can read & I think it will be useful in our lives.
1) বাংলাদেশে কোন ধরনের রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থা প্রচলিত?
উঃ- সার্বভৌম প্রজাতন্ত্র।
2) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের সর্বোচ্চ আইন কি?
উঃ- সংবিধান।
3) কোন দেশের কোন লিখিত সংবিধান নাই?
উঃ- বৃটেন, নিউজিল্যান্ড, স্পেন ও সৌদি আরব।
4) বিশ্বের সবচেয়ে বড় সংবিধান কোনদেশের?
উঃ- ভারত।
5) বিশ্বের সবচেয়ে ছোট সংবিধান কোন দেশের?
উঃ- আমেরিকা।
6) বাংলাদেশের সংবিধানের প্রনয়ণের প্রক্রিয়া শুরু হয় কবে?
উঃ- ২৩ মার্চ, ১৯৭২।
7) বাংলাদেশের সংবিধান কবে উত্থাপিত হয়?
উঃ- ১২ অক্টোবর, ১৯৭২।
Mistake number) গনপরিষদে কবে সংবিধান গৃহীত হয়?
উঃ- ০৪ নভেম্বর,১৯৭২।
9) কোন তারিখে বাংলাদেশের সংবিধান বলবৎ হয়?
উঃ- ১৬ ডিসেম্বর, ১৯৭২।
10) বাংলাদেশে গনপরিষদের প্রথম অধিবেশন কবে অনুষ্ঠিত হয়?
উঃ- ১০ এপ্রিল, ১৯৭২।
11) সংবিধান প্রনয়ণ কমিটি কতজন সদস্য নিয়ে গঠন করা হয়?
উঃ- ৩৪ জন।
12) সংবিধান রচনা কমিটির প্রধান কে ছিলেন?
উঃ- ডঃ কামাল হোসেন।
13) সংবিধান রচনা কমিটির একমাত্রমহিলা সদস্য কে ছিলেন?
উঃ- বেগম রাজিয়া বেগম।
14) বাংলাদেশ সংবিধানের কয়টি পাঠ কয়েছে?
উঃ- ২ টি। বাংলা ও ইংরেজি।
15) কি দিয়ে বাংলাদেশের সংবিধান শুরু ও শেষ হয়েছে?
উঃ- প্রস্তাবনা দিয়ে শুরু ও ৭টি তফসিল দিয়ে শেষ।
16) বাংলাদেশের সংবিধানে কয়টি ভাগ আছে?
উঃ- ১১ টি।
17) বাংলাদেশের সংবিধানের অনুচ্ছেদ/ধারা কতটি?
উঃ- ১৫৩ টি।
18) বাংলাদশের প্রথম হস্তলেখা সংবিধানের মূল লেখক কে?
উঃ- আবদুর রাউফ।
19) প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শ ছাড়া কোন কাজ রাষ্ট্রপতি এককভাবে করতে সক্ষম?
উঃ- প্রধান বিচারপতির নিয়োগ দান।
20) রাষ্ট্রপতির মেয়াদকাল কত বছর?
উঃ- কার্যভার গ্রহনের কাল থেকে ৫ বছর।
21) একজন ব্যক্তি বাংলাদশের রাষ্ট্রপতি হতে পারবেন কত মেয়াদকাল?
উঃ- ২ মেয়াদকাল।
22) কার উপর আদালতের কোন এখতিয়ার নেই?
উঃ- রাষ্ট্রপতি।
23) জাতীয় সংসদের সভাপতি কে?
উঃ- স্পিকার।
24) রাষ্ট্রপতি পদত্যাগ করতে চাইলে কাকে উদ্দেশ্য করে পদত্যাগ পত্র লিখবেন?
উঃ- স্পিকারের উদ্দেশ্যে।
25) প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপ-মন্ত্রীদের নিয়োগ প্রদান করেন কে?
উঃ- রাষ্ট্রপতি।
26) এ্যার্টনি জেনারেল পদে নিয়োগ দান করেন কে?
উঃ- রাষ্ট্রপতি।
27) সংবিধানের প্রধান বৈশিষ্ট্য আছে কতটি?
উ:১২টি।
28) বাংলাদেশের সর্বোচ্চ আদালত কোনটি?
উঃ- সুপ্রীম কোর্ট।
29) সুপ্রীম কোর্টের কয়টি বিভাগ আছে?
উঃ- ২টি । আপিল বিভাগ ও হাইকোর্ট বিভাগ।
30) সুপ্রীম কোর্টের বিচারপতিদের মেয়াদকাল কত?
উঃ- ৬৭ বছর পর্যন্তু।
31) বাংলাদেশের সংবিধানের প্রথম মূলনীতি কি ছিল?
উঃ- ধর্মনিরপেক্ষতা, জাতীয়তাবাদ, গনতন্ত্র ও সমাজতন্ত্র।
32) কোন আদেশবলে সংবিধানের মূলনীতি “ধর্মনিরপেক্ষতা” বাদ দেয়া হয়?
উঃ- ১৯৭৮ সনে ২য় ঘোষনাপত্র আদেশ নং ৪ এর ২ তফসিল বলে।
33) কোন আদেশবলে সংবিধানের শুরুতে “বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম” সন্নিবেশিত হয়?
উঃ- ১৯৭৮ সনে ২য় ঘোষনাপত্র আদেশ নং ৪ এর ২ তফসিল বলে।
34) কোন আদেশবলে বাংলাদেশের নাগরিকগণ “বাংলাদেশী” বলে পরিচিত হন?
উঃ- ১৯৭৮ সনে ২য় ঘোষনাপত্র আদেশ নং ৪ এর ২ তফসিল বলে।
35) সংবিধানের কোন অনুচ্ছেদে “গনতন্ত্র ও মৌলিক মানবাধিকারের” নিশ্বয়তা দেয়া আছে?
উঃ- ১১ অনুচ্ছেদ।
36) সংবিধানের কোন অনুচ্ছেদে “কৃষক ও শ্রমিকের” মুক্তির কথা বলা আছে?
উঃ- ১৪ অনুচ্ছেদ।
37) সংবিধানের কোন অনুচ্ছেদে “নির্বাহী বিভাগ থেকে বিচার বিভাগ পৃথকীকরণ” এর কথা বলা হয়েছে?
উঃ- ২২ অনুচ্ছেদ।
38) “সকল নাগরিক আইনের চোখে সমান এবং আইনের সমান আশ্রয় লাভের
অধিকারী” বর্ণিত কোন অনুচ্ছেদে?
উঃ- ২৭ অনুচ্ছেদে।
39) জীবন ও ব্যক্তি স্বাধীনতার অধিকার রক্ষিত রয়েছে কোন অনুছেদে?
উঃ- ৩য় ভাগে, ৩২ অনুচ্ছেদে।
40) গ্রেফতার ও আটক সম্পর্কিত রক্ষাকবচের কোন অনুচ্ছেদ?
উঃ- ৩য় ভাগে, ৩৩ অনুচ্ছেদে।
41) জবরদস্তি নিষিদ্ধ করা হয়েছে কোন অনুচ্ছেদে?
উঃ- ৩য় ভাগে, ৩৪ অনুচ্ছেদে।
42) চলাফেরার স্বাধীনতা দেয়া হয়েছে কোন অনুচ্ছেদে?
উঃ- ৩য় ভাগে, ৩৬ অনুচ্ছেদে।
43) সমাবেশের স্বাধীনতা দেয়া হয়েছে কোন অনুচ্ছেদে?
উঃ- ৩য় ভাগে, ৩৭ অনুচ্ছেদে।
44) সমিতি ও সংঘ গঠনের স্বাধীনতা দেয়া হয়েছে কোন অনুচ্ছেদে?
উঃ- ৩য় ভাগে, ৩৮ অনুচ্ছেদে।
45) চিন্তা ও বিবেকের স্বাধীনতা দেয়া হয়েছে কোন অনুচ্ছেদে?
উঃ- ৩য় ভাগে, ৩৯ (১) অনুচ্ছেদে।
46) বাক ও ভাব প্রকাশের স্বাধীনতা দেয়া হয়েছে কোন অনুছেদে?
উঃ- ৩য় ভাগে, ৩৯(২) ক অনুচ্ছেদে।
47) সংবাদপত্রের স্বাধীনতা দেয়া হয়েছে কোন অনুছেদে?
উঃ- ৩য় ভাগে, ৩৯ (২) খ অনুচ্ছেদে।
48) পেশা ও বৃত্তির স্বাধীনতা দেয়া হয়েছে কোন অনুছেদে?
উঃ- ৩য় ভাগে, ৪০ অনুচ্ছেদে।
49) ধর্মীয় স্বাধীনতার কথা বলা হয়েছে কোন অনুছেদে?
উঃ- ৩য় ভাগে, ৪১ অনুচ্ছেদে।
50) সম্পত্তির অধিকারের কথা বর্ণিত হয়েছে কোন অনুছেদে?
উঃ- ৩য় ভাগে, ৪২ অনুচ্ছেদে।
51) স্পিকার ও ডেপুটি স্পিকার সংক্রান্ত অনুচ্ছেদ কোনটি?
উঃ- ৭৪ অনুচ্ছেদ।
52) ন্যায়পাল নিয়োগ সংক্রান্ত কথা বলা হয়েছে?
উঃ- ৭৭ অনুচ্ছেদে।
53) জাতীয় সংসদে ন্যায়পাল আইন কবে পাস হয়?
উঃ- ১৯৮০ সালে।
54) বাংলাদশের সংবিধানের এ পর্যন্তু মোট কতটি সংশোধনী আনা হয়েছে?
উঃ- ১৬ টি।
55) ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ কবে জারী করা হয়?
উঃ- ২৬ সেপ্টেম্বর, ১৯৭৫।
56) ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ কবে বাতিল করা হয়?
উঃ- ১২ নভেম্বর, ১৯৯৬।
58) বাংলাদেশের আইন সভার নাম কি?
উঃ- জাতীয় সংসদ।
59) জাতীয় সংসদ ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর কবে স্থাপন করা হয়?
উঃ- ১৯৬২ সালে।
60) জাতীয় সংসদ ভবনের স্থপতি কে?
উঃ- লুই আই কান।
61) লুই আই কান কোন দেশের নাগরিক?
উঃ- যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক।
62) জাতীয় সংসদ ভবনের ছাদ ও দেয়ালের স্ট্রাকচারাল ডিজাইনার কে?
উঃ- হ্যারি পাম ব্লুম।
63) জাতীয় সংসদ ভবনের নির্মাণ কাজ শুরম্ন হয় কবে?
উঃ- ১৯৬৫ সালে।
64) জাতীয় সংসদ ভবনের ভূমির পরিমান
কত?
উঃ- ২১৫ একর।
65) জাতীয় সংসদ ভবন উদ্বোধন করা হয়?
উঃ- ২৮ জানুয়ারী, ১৯৮২।
66) জাতীয় সংসদ ভবন কত তলা বিশিষ্ট?
উঃ- ৯ তলা।
67) জাতীয় সংসদ ভবনের উচ্চতা কত?
উঃ- ১৫৫ ফুট।
68) বাংলাদেশের জাতীয় সংসদের
প্রতীক কি?
উঃ- শাপলা ফুল।
PDF File Download করতে এখানে ক্লীক করুন
69) জাতীয় সংসদ ভবন কে উদ্বোধন করেন?
উঃ- রাষ্ট্রপতি আব্দুস সাত্তার।
70) বর্তমান জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশন কবে বসে?
উঃ- ১৫ ফেব্রুয়ারী, ১৯৮২।
71) বাংলাদেশের সংসদের মোট আসন সংখ্যা কতটি?
উঃ- ৩৫০ টি।
72) বাংলাদেশের সংসদের সাধারন নির্বাচিত আসন সংখ্যা কতটি?
উঃ- ৩০০ টি।
73) সংসদে মহিলাদের জন্য সংরক্ষিত আসন স্যখ্যা কতটি?
উঃ- ৫০ টি।
74) বাংলাদেশের জাতীয় সংসদের ১ নং আসন কোনটি?
উঃ- পঞ্চগড়-১।
75) বাংলাদেশের জাতীয় সংসদের ৩০০ নং আসন কোনটি?
উঃ- বান্দরবান।
76) জাতীয় সংসদের কাস্টি ভোট বলা হয়?
উঃ- স্পিকারের ভোটকে।
77) সংসদের এক অধিবেশনের সমাপ্তি ও
পরবর্তী অধিবেশনের প্রথম বৈঠকের মধ্যে ব্যবধান কতদিন?
উঃ- ৬০ দিন।
78) গণতন্ত্র ও মানবাধিকার এবং মৌলিক অধিকার বলবৎকরন কোন কোন অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে?
উত্তর: যথাক্রমে ১১ ও ৪৪ অনুচ্ছেদ।
79) সাধারন নির্বাচনের কতদিনের মধ্যে সংসদ অধিবশন আহবান করতে হবে?
উঃ- ৩০ দিন।
80) সংসদ অধিবেশন কে আহবান করেন?
উঃ- রাষ্ট্রপতি।
81) সংসদ অধিবেশনের কোরাম পূর্ন হয় কত জন সংসদ হলে?
উঃ- ৬০ জন।
82) সংবিধান সংশোধনের জন্য কত সংসদ সদস্যের ভোটের প্রয়োজন হয়?
উঃ- দুই-তৃতীয়াংশ।
83) একাধারে কতদিন সংসদে অনুপস্থিত থাকলে সংসদ সদস্য পদ বাতিল হয়?
উঃ- ৯০ কার্যদিবস।
84) গণ-পরিষদের প্রথম স্পিকার কে?
উঃ- শাহ আব্দুল হামিদ।
85) গণ-পরিষদের প্রথম ডেপুটি স্পিকার কে?
উঃ- মোহাম্মদ উল্ল্যাহ।
86) এ দেশের সংসদীয় রাজনীতির ইতিহাস কবে থেকে চর্চা শুরু হয়?
উঃ- ১৯৩৭ সালে।
87) কোন কোন বিদেশী প্রথম জাতীয়
সংসদে ভাষণ দেন?
উঃ- যুগোশ্লেভিয়ার প্রেসিডেন্ট
মার্শাল জোসেফ টিটো-৩১ জানু, ১৯৭৪
এবং ভারতের প্রেসিডেন্ট ভি.ভি.
গিরি-১৮ জুন, ১৯৭৪।
88) বাংলাদেশের অষ্টম জাতীয় সংসদ নিবার্চনে নির্বাচিত একজন সদস্য নিজেই নিজের শপথ বাক্য পাঠ
করিয়েছেন, তিনি কে?
উঃ- এডভোকেট আবদুল হামিদ।
89) নির্বাচন কমিশন কার সমমর্যাদার অধিকারী?
উঃ- সুপ্রীম কোর্ট।
90) বাংলাদেশের প্রথম নির্বাচন কমিশনার কে?
উঃ- বিচারপতি এম ইদ্রিস।
91) বাংলাদেশের বর্তমান নির্বাচন কমিশনার কে?
উঃ- কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ
92) নির্বাচন কমিশন কেমন প্রতিষ্ঠান?
উঃ- স্বতন্ত্র ও নিরপেক্ষ প্রতিষ্ঠান।
93) “তত্ত্বাবধায়ক সরকার বিল” কবে সংসদে পাশ হয়?
উঃ- ২৭ মার্চ, ১৯৯৬।
94) বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি কে?
উঃ- সৈয়দ নজরুল ইসলাম (অস্থায়ী)।
95) এডভোকেট আবদুল হামিদ বাংলাদেশের কততম প্রেসিডেন্ট?
উঃ- ২০তম।
96) বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী কে?
উঃ- তাজউদ্দিন আহমেদ।
97) শেখ হাসিনা বর্তমানে বাংলাদেশের কততম প্রধানমন্ত্রী?
উঃ- ১৪ তম।
98) বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি হতে হলে বয়স কমপক্ষে কত হবে?
উঃ- ৩৫ বছর।
99) বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হতে হলে বয়স কমপক্ষে কত হতে হবে?
উঃ- ২৫ বছর।
100) জাতীয় সংসদের সদস্য হতে হলে বয়স কমপক্ষে কত হতে হবে?
উঃ- ২৫ বছর।

 

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় এর গ্রেডিং সিস্টেম ও CGPA নির্ণয় করার পদ্ধতি
এনইউ গ্রেডিং সিস্টেম:
৮০ বা তদুর্ধ = A+ = ৪.০০ বা ১ম বিভাগ
৭৫ থেকে ৭৯ = A = ৩.৭৫ বা ১ম বিভাগ
৭০ থেকে ৭৪ = A- = ৩.৫০ বা ১ম বিভাগ
৬৫ থেকে ৬৯ = B+ = ৩.২৫ বা ১ম বিভাগ
৬০ থেকে ৬৪ = B = ৩.০০ বা ১ম বিভাগ
৫৫ থেকে ৫৯ = B- = ২.৭৫ বা ২য় বিভাগ
৫০ থেকে ৫৪ = C+ = ২.৫০ বা ২য় বিভাগ
৪৫ থেকে ৪৯ = C = ২.২৫ বা ২য় বিভাগ
৪০ থেকে ৪৫ = D = ২.০০ বা ৩য় বিভাগ
৩৯ থেকে ০ = Fail = ০.০০
NU CGPA নির্ণয়:
১ বছরের CGPA নির্ণয় : এক বছরে মোট অর্জিত পয়েন্ট এক বছরে মোট অর্জিত ক্রেডিট।
এক বছরে মোট অর্জিত পয়েন্ট : কোন বিষয়ে প্রাপ্ত পয়েন্টকে ঐ বিষয়ের ক্রেডিট দিয়ে গুন। এভাবে সকল সাবজেক্টের পয়েন্টকে তাদের ক্রেডিট দিয়ে গুন দিয়ে সব গুনফলকে যোগ করে পাওয়া যাবে “এক বছরের মোট অর্জিত পয়েন্ট”।
.
এক বছরের মোট অর্জিত ক্রেডিট : পাশ কৃত সকল বিষয়ের ক্রেডিট যোগ করে পাওয়া যাবে “এক বছরের মোট অর্জিত ক্রেডিট”
Ex : বিষয়ভিত্তিক পয়েন্ট × তার ক্রেডিট :
A-= 3.50×4 =14 ;
B+=3.25×4=13;
A+=4.00×4 =16;
B+=3.25×4=13;
A-=3.50×4=14;
B+=3.25×4 =13;
সুতরাং মোট অর্জিত পয়েন্টস :
14+13+16+13+14+13=83
এবং মোট অর্জিত ক্রেডিট :
4+4+4+4+4+4 = 24
মোট জিপিএ দাড়ায় : 83÷24=3.45
.
৪ বছরের CGPA নির্ণয়: চার বছরের মোট অর্জিত পয়েন্ট (প্রথম বর্ষ + ২য় বর্ষ + ৩য় বর্ষ + চতুর্থ বর্ষ) ÷ পুরো কোর্সের মোট অর্জিত ক্রেডিট সংখ্যা।
চার বছরের মোট অর্জিত পয়েন্ট : জিপিএ নির্নয়ের প্রথম ধাপের ন্যায় সকল বর্ষের “মোট অর্জিত পয়েন্টস” গুলো পর পর যোগ করলে পাবেন চার বছরের মোট অর্জিত পয়েন্ট।
পুরো কোর্সের মোট অর্জিত ক্রেডিট : পুরো কোর্সের সকল পাশকৃত বিষয়ের ক্রেডিটের যোগ ফল হলো পুরো কোর্সের মোট অর্জিত ক্রেডিট।
Ex : চার বছরের মোট অর্জিত পয়েন্টস : 83+85+81+79=328
পুরো কোর্সের মোট অর্জিত ক্রেডিট :
24+24+26+28=102
অতএব, মোট CGPA : 328÷102=3.21

কিছু গুরুত্বপূর্ণ শব্দের পূর্ণরূপ সংগ্রহে রাখুন

1.ℹ️NEWS -এর পূর্ণরূপ North, East, West, South, (নিউজ) নর্থ, ইষ্ট, ওয়েষ্ট, সাউথ
2.ℹ️E-MAIL -এর পূর্ণরূপ Electronic Mail, (ই-মেইল) ইলেকট্রনিক মেইল
3.ℹ️GIF -এর পূর্ণরূপ Graphics interchange format, (গিফ) গ্রাফিক্স ইন্টারচেঞ্জ ফরমেট
4.ℹ️Date -এর পূর্ণরূপ Day and Time Evolution, (ডেট) ডে এন্ড টাইম ইভোলুশন।
5.ℹ️LCD -এর পূর্ণরূপ Liquid crystal display, (এলসিডি) লিকুইড ক্রিস্টাল ডিসপ্লে
6.ℹ️ IT -এর পূর্ণরূপ Information technology, (আইটি) ইনফরমেশন টেকনোলজি
7.ℹ️IP -এর পূর্ণরূপ Internet protocol , (আইপি) ইন্টারনেট প্রোটোকল
8.ℹ️CD -এর পূর্ণরূপ Compact Disk, (সিডি) কম্প্যাক্ট ডিস্ক
9.ℹ️DVD -এর পূর্ণরূপ Digital Video Disk, (ডিভিডি) ডিজিটাল ভিডিও ডিস্ক
10.ℹ️PDF -এর পূর্ণরূপ Portable document format, (পিডিএফ) পোর্টেবল ডকুমেন্ট ফরম্যাট
11.ℹ️OS -এর পূর্ণরূপ Operating System, (ওসি) অপারেটিং সিস্টেম
12.ℹ️ISO -এর পূর্ণরূপ International standards organization(কম্পিউটার ফাইল), International Organization for Standardization(বিশ্ব মার্ক), (আইএসও) ইন্টারন্যাশনাল স্ট্যান্ডার্ডস অর্গানিজশন,
13.ℹ️PC -এর পূর্ণরূপ Personal Computer, (পিসি) পার্সোনাল কম্পিউটার
14.ℹ️CPU -এর পূর্ণরূপ Central Processing Unit, (সিপিইউ) সেন্ট্রাল প্রসেসিং ইউনিট
15.ℹ️RAM -এর পূর্ণরূপ Random Access Memory, (রেম) রান্ডম এক্সেস মেমোরি
16.ℹ️ROM -এর পূর্ণরূপ Read Only Memory, (রোম) রিড অনলি মেমোরি
17.ℹ️BIOS -এর পূর্ণরূপ Basic Input Output System, (বায়োস) বেসিক ইনপুট আউটপুট সিস্টেম
18.ℹ️HDD -এর পূর্ণরূপ Hard Disk Drive, (এইচডিডি) হার্ড ডিস্ক ড্রাইভ
19.ℹ️HTTP এর পূর্ণরূপ — Hyper Text Transfer Protocol.
20.ℹ️HTTPS এর পূর্ণরূপ — Hyper Text Transfer Protocol Secure.
21.ℹ️URL এর পূর্ণরূপ — Uniform Resource Locator.
22.ℹ️VIRUS এর পূর্ণরূপ — Vital Information Resourc Under Seized.
23.ℹ️HTML -এর পূর্ণরূপ Hyper Text Mark Up Language, (এইচটিএমএল) হাইপার টেক্সট মার্ক উপ ল্যাঙ্গুয়েজে
24.ℹ️KB -এর পূর্ণরূপ Kilo Byte, (কেবি) কিলো বাইট
25.ℹ️MB -এর পূর্ণরূপ Mega Byte, (এমবি) মেগা বাইট
26.ℹ️GB -এর পূর্ণরূপ Giga Byte, (জিবি) গিগা বাইট
27.ℹ️TB -এর পূর্ণরূপ Tera Byte ,(টিবি) তেরা বাইট
28.ℹ️FDD -এর পূর্ণরূপ Floppy Disk Drive, (এফডিডি) ফ্লপি ডিস্ক ড্রাইভ
29.ℹ️WiMAX -এর পূর্ণরূপ Worldwide Interoperability for Microwave Access
(উইমাক্স) ওয়ার্ল্ডওয়াইড ইন্টেরোপেরাবিলিটি ফর মাইক্রোওয়েভ এক্সেস
30.ℹ️SIM এর পূর্ণরূপ — Subscriber Identity Module.
31. 3G এর পূর্ণরূপ — 3rd Generation.
32.ℹ️GSM এর পূর্ণরূপ — Global System for Mobile Communication.
33.ℹ️CDMA এর পূর্ণরূপ — Code Divison Multiple Access.
34.ℹ️UMTS এর পূর্ণরূপ — Universal Mobile Telecommunication System.
35.ℹ️ICT -এর পূর্ণরূপ Information and Communication Technology , (আইসিটি) ইনফরমেশন এন্ড কমিউনিকেশন টেকনোলজি
36.ℹ️WWW -এর পূর্ণরূপ World Wide Web, (WWW) ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব
37.ℹ️V.C- এর পূর্ণরূপ — Vice Chancellor, (ভিসি) ভাইস-চ্যাঞ্চেলর
38.ℹ️D.C- এর পূর্ণরূপ— District Commissioner/ Deputy Commissioner,(ডিসি) ডিস্ট্রিক্ট কমিশনার/ ডেপুটি কমিশনার
39.ℹ️A.M – এর পূর্ণরূপ — Ante meridian.
40.ℹ️P.M – এর পূর্ণরূপ — Post meridian.
41.ℹ️GPA,5 – এর পূর্ণরূপ—Grade point Average
42.ℹ️J.S.C – এর পূর্ণরূপ — Junior School Certificate.
43.ℹ️J.D.C – এর পূর্ণরূপ — Junior Dakhil Certificate.
44.ℹ️S.S.C – এর পূর্ণরূপ — Secondary School Certificate.
45.ℹ️H.S.C – এর পূর্ণরূপ — Higher Secondary Certificate.
46.ℹ️B. A – এর পূর্ণরূপ — Bachelor of Arts.
47.ℹ️M.A. – এর পূর্ণরূপ — Master of Arts.
48.ℹ️M.D. – এর পূর্ণরূপ — Doctor of Medicine./ Managing director.
49.ℹ️M.S. – এর পূর্ণরূপ — Master of Surgery.
50.ℹ️B.Sc. Ag. – এর পূর্ণরূপ — Bachelor of Science in Agriculture .
51.ℹ️M.Sc.Ag.- এর পূর্ণরূপ — Master of Science in Agriculture.
52.ℹ️B.Sc. – এর পূর্ণরূপ — Bachelor of Science.
53.ℹ️M.Sc. – এর পূর্ণরূপ — Master of Science.
54.ℹ️D.Sc. – এর পূর্ণরূপ — Doctor of Science.
55.ℹ️B.C.O.M – এর পূর্ণরূপ — Bachelor of Commerce.
56.ℹ️M.C.O.M – এর পূর্ণরূপ — Master of Commerce.
57.ℹ️B.ed – এর পূর্ণরূপ — Bachelor of education.
58.ℹ️B.B.S – এর পূর্ণরূপ — Bachelor of Business Studies.
59.ℹ️B.S.S – এর পূর্ণরূপ — Bachelor of Social Science/Study.
60.ℹ️B.B.A – এর পূর্ণরূপ — Bachelor of Business Administration
61.ℹ️M.B.A – এর পূর্ণরূপ — এর পূর্নরূপ — Masters of Business Administration.
62.ℹ️B.C.S – এর পূর্ণরূপ — Bangladesh Civil Service.
63.ℹ️M.B.B.S. – এর পূর্ণরূপ — Bachelor of Medicine, Bachelor of Surgery.
64.ℹ️Ph.D./ D.Phil. – এর পূর্ণরূপ — Doctor of Philosophy (Arts & Science)
65.ℹ️D.Litt./Lit. – এর পূর্ণরূপ — Doctor of Literature/ Doctor of Letters.
66.ℹ️Dr. – এর পূর্ণরূপ — Doctor.
67.ℹ️Mr. – এর পূর্ণরূপ — Mister.
68.ℹ️Mrs. – এর পূর্ণরূপ — Mistress.
69.ℹ️M.P. – এর পূর্ণরূপ — Member of Parliament.
70.ℹ️M.L.A. – এর পূর্ণরূপ— Member of Legislative Assembly.
71.ℹ️M.L.C – এর পূর্ণরূপ — Member of Legislative Council.
72.ℹ️P.M. – এর পূর্ণরূপ — Prime Minister.
73.ℹ️V.P – এর পূর্ণরূপ — Vice President./ Vice Principal.
74.ℹ️V.C- এর পূর্ণরূপ — Vice Chancellor.
75.ℹ️D.C- এর পূর্ণরূপ— District Commissioner/ Deputy Commissioner.
76.ℹ️S.P- এর পূর্ণরূপ — Superintendent of police
77.ℹ️S.I – এর পূর্ণরূপ — Sub Inspector Police.
78.ℹ️CGPA-এর পূর্নরূপ–Cumulative Grade Point Average
79.ℹ️Wi-Fi র পূর্ণরূপ — Wireless Fidelity.
80.ℹ️RTS এর পূর্ণরূপ — Real Time Streaming
81.ℹ️AVI এর পূর্ণরূপ — Audio Video Interleave
82.ℹ️SIS এর পূর্ণরূপ — Symbian OS Installer File
83.ℹ️AMR এর পূর্ণরূপ — Adaptive Multi-Rate Codec
84.ℹ️JAD এর পূর্ণরূপ — Java Application Descriptor
85.ℹ️ JAR এর পূর্ণরূপ — Java Archive
86.ℹ️MP3 এর পূর্ণরূপ — MPEG player lll
87.ℹ️3GPP এর পূর্ণরূপ — 3rd Generation Partnership Project
88.ℹ️3GP এর পূর্ণরূপ — 3rd Generation Project
89.ℹ️AAC এর পূর্ণরূপ — Advanced Audio Coding
90.ℹ️BMP এর পূর্ণরূপ — Bitmap
91.ℹ️JPEG এর পূর্ণরূপ — Joint Photographic Expert Group
92.ℹ️SWF এর পূর্ণরূপ — Shock Wave Flash
93.ℹ️WMV এর পূর্ণরূপ — Windows Media Video
94.ℹ️WMA এর পূর্ণরূপ — Windows Media Audio
95.ℹ️WAV এর পূর্ণরূপ — Waveform Audio
96.ℹ️PNG এর পূর্ণরূপ — Portable Network Graphics
97.ℹ️DOC এর পূর্ণরূপ — Docoment (Microsoft Corporation)
98.ℹ️M3G এর পূর্ণরূপ — Mobile 3D Graphics
99.ℹ️M4A এর পূর্ণরূপ — MPEG-4 Audio File
100.ℹ️NTH এর পূর্ণরূপ — Nokia Theme(series 40)
101.ℹ️THM এর পূর্ণরূপ — Themes (Sony Ericsson)
102.ℹ️MMF এর পূর্ণরূপ — Synthetic Music Mobile Application File
103.ℹ️NRT এর পূর্ণরূপ — Nokia Ringtone
104.ℹ️XMF এর পূর্ণরূপ — Extensible Music File
105.ℹ️WBMP এর পূর্ণরূপ — Wireless Bitmap Image
106.ℹ️DVX এর পূর্ণরূপ — DivX Video
107.ℹ️HTML এর পূর্ণরূপ — Hyper Text Markup Language
108.ℹ️WML এর পূর্ণরূপ — Wireless Markup Language
109.ℹ️CRT — Cathode Ray Tube.
110.ℹ️DAT এর পূর্ণরূপ — Digital Audio Tape.
111.ℹ️DOS এর পূর্ণরূপ — Disk Operating System.
112.ℹ️GUI এর পূর্ণরূপ — Graphical User Interface.
113.ℹ️ISP এর পূর্ণরূপ — Internet Service Provider.
114.ℹ️TCP এর পূর্ণরূপ — Transmission ControlProtocol.
115.ℹ️UPS এর পূর্ণরূপ — Uninterruptible Power Supply.
116.ℹ️HSDPA এর পূর্ণরূপ — High Speed Downlink Packet Access.
117.ℹ️EDGE এর পূর্ণরূপ — Enhanced Data Rate for
118.ℹ️GSM [Global System for Mobile Communication]
119.ℹ️VHF এর পূর্ণরূপ — Very High Frequency.
120.ℹ️UHF এর পূর্ণরূপ — Ultra High Frequency.
121.ℹ️GPRS এর পূর্ণরূপ — General Packet Radio Service.
122.ℹ️WAP এর পূর্ণরূপ — Wireless Application Protocol.
123.ℹ️ARPANET এর পূর্ণরূপ — Advanced Research Project Agency Network.
124.ℹ️IBM এর পূর্ণরূপ — International Business Machines.
125.ℹ️HP এর পূর্ণরূপ — Hewlett Packard.
126.ℹ️AM/FM এর পূর্ণরূপ — Amplitude/ Frequency Modulation.
127.ℹ️WLAN এর পূর্ণরূপ — Wireless Local Area Network
128.ℹ️USB এর পূর্ণরূপ — Universal Serial Bus.
129.ℹ️HD এর পূর্ণরূপ — High Definition
130.ℹ️APK এর পূর্ণরূপ — Android application package.
131.ℹ️BCS এর পূর্ণরূপ — Bangladesh Civil Service
132.ℹ️NCTB এর পূর্ণরূপ — National Curriculam & Text Book
133.ℹ️DPE এর পূর্ণরূপ — Directorate of Primary Education
134.ℹ️MBA এর পূর্ণরূপ — Master of Business Administration
135.ℹ️LLB এর পূর্ণরূপ — Bachelor Of Law
136.ℹ️VIP এর পূর্ণরূপ — Very Important Person
137.ℹ️UNICEF এর পূর্ণরূপ — United Nations International Children’s Emergency Fund
138.ℹ️OK এর পূর্ণরূপ — All Correct
139.ℹ️এক্সেল — এক্সেল একটি হিসাব রক্ষার কাজে ব্যবহৃত প্রোগ্রাম।
140.ℹ️FBC এর পূর্ণরূপ — Federal bureau corporation
141.ℹ️fb এর পূর্ণরূপ — Foreign body/ Facebook
142.ℹ️ABC এর পূর্ণরূপ — Alphabetically Based Computerized
143.ℹ️DDR এর পূর্ণরূপ — Double data rate
144.ℹ️VAT – এর পূর্নরূপ — Value Added Tax (মুল্য সংযোজন কর)
145.ℹ️XY এর পূর্ণরূপ — Male Chromosome
146.ℹ️XXY এর পূর্ণরূপ — Klinefelter Syndrome chromosomes
147.ℹ️A-Level এর পূর্নরূপ — Advanced Level
148.ℹ️BL এর পূর্নরূপ — Bachelor Of Law
149.ℹ️YAHOO–Yet Another Hierarchical Officious Oracle.
150.ℹ️BTV এর পূর্নরূপ — Bangladesh Television
151.ℹ️LP এর পূর্নরূপ — Long Playing
152.ℹ️PIN এর পূর্নরূপ — Postal Index Number
153.ℹ️KG এর পূর্নরূপ — KiloGram / Kindergarten
154.ℹ️Mbps. = Mega bits per second
MB/s. = Mega byte per second
155.ℹ️DJ- এর পূর্নরূপ — Disc jockey
156.ℹ️OTG – এর পূর্নরূপ — On The Go 2021 Year

 

পরীক্ষার প্রস্তুতি: প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক নিয়োগ

Job exam Preparation 2020

Source : youthcarnival

Job exam Preparation 2021 আগামী যেকোন চাকরীর পরীক্ষায় এই ৩৭৭টি প্রশ্ন থেকে কমন পাবেন (ইনশাআল্লাহ্)

✿➢১) সামরিক শাসন জারি করা হয় – ১৯৫৮ সালের ৭ অক্টোবর
✿➢২) আইয়ুব খান ক্ষমতা দখল করেন – ১৯৫৮ সালের ২৭ অক্টোবর
✿➢৩) মৌলিক গণতন্ত্র চালু করেন – আইয়ুব খান
✿➢৪) আইয়ুব বিরোধী আন্দোলন শুরু হয় – ১৯৬১ সালে
✿➢৫) ছাত্র সমাজ ১৫ দফা কর্মসূচি ঘোষণা করে – ১৯৬২ সালে
✿➢৬) ভারত পাকিস্তান যুদ্ধ হয় – ১৯৬৫ সালের ৬ সেপ্টেম্বর
✿➢৭) ভারত পাকিস্তান যুদ্ধ চলে – ১৭ দিন
✿➢৮) বাঙ্গালি জাতির মুক্তির সনদ – ৬ দফা দাবি
✿➢৯) ৬ দফা দাবি উথাপন করেন – বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান
✿➢১০) ৬ দফা দাবি উথাপন করা হয় – ১৯৬৬ সালের ৫-৬ ফেব্রুয়ারি
✿➢১১) আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার আসামি ছিল – ৩৫ জন
✿➢১২) আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার প্রধান আসামি করা হয় – বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে
✿➢১৩) আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার শুনানি হয় – ১৯৬৮ সালের ১৯ জুন
✿➢১৪) ঊনসত্তরের গণ অব্যুথান হয় – ১৯৬৯ সালে
✿➢১৫) গণ অভ্যুথানে শহীদ হন – আসাদ, ড. শামসুজ্জোহা
✿➢১৬) আগরতাল ষড়যন্ত্র মামলা থেকে শেখ মুজিবুর রহমানকে মুক্তি দেয়া হয় – ১৯৬৯ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি
✿➢১৭) শেখ মুজিবুর রহমানকে ” বঙ্গবন্ধু ” উপাধি দেয়া হয় – ১৯৬৯ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি
✿➢১৮) আইয়ুব খান পদত্যাগ করেন – ১৯৬৯ সালের ২৫ মার্চ
✿➢১৯) কেন্দ্রীয় আইন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় – ১৯৭০ সালের ৭ ডিসেম্বর
✿➢২০) নির্বাচনে মোট ভোটার ছিল – ৫ কোটি ৬৪ লাখ
✿➢২১) কেন্দ্রীয় আইন পরিষদের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ আসন লাভ করে – ১৬৭ টি ( ১৬৯ এর মধ্যে)
✿➢২২) প্রাদেশিক পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় – ১৯৭০ সালের ১৭ ডিসেম্বর
✿➢২৩) প্রাদেশিক পরিষদ নির্বাচনে আ.লীগ আসন পায় – ২৮৮ টি ( ৩০০ এর মধ্যে)
✿➢২৪) পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের অধিবেশন স্থগিত করেন – আগা খান
✿➢২৫) অধিবেশন স্থগিত করা হয় – ১৯৭১ সালের ১ মার্চ

Join Our facebook group    Job exam Preparation

✿➢২৬) অসহযোগ আন্দোলনের ডাক দেন – বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান
✿➢২৭) অসহযোগ আন্দোলনের ডাক দেয়া হয় – ১৯৭১ সালের ২ মার্চ
✿➢২৮) বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের সময় পূর্ব পাকিস্তানে চলছিল – অসহযোগ আন্দোলন
✿➢২৯) জাতীয় পরিষদের অধিবেশন আহবান করা হয় – ১৯৭১ সালের ৩ মার্চ
✿➢৩০) পূর্ববাংলার স্বাধীনতার ঘোষণা দেয়া হয় – ১৯৭১ সালের ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণে
✿➢৩১) অপারেশন সার্চ লাইট চালানোর নীলনক্সা করা হয় – ১৯৭১ সালের ১৭ মার্চ
✿➢৩২) নীলনক্সা করেন – টিক্কা খান, রাও ফরমান আলী
✿➢৩৩) অপারেশন সার্চ লাইট হলো – ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চের বর্বরহত্যাকান্ড
✿➢৩৪) বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার ঘোষণা দেন – ২৬ মার্চ প্রথম প্রহরে ওয়্যারলেসযোগে
✿➢৩৫) বঙ্গবন্ধুকে শেখ মুজিবুর রহমানকে গ্রেফতার করা হয় – ২৬ মার্চ প্রথম প্রহরে আনুমানিক রাত ১.৩০ মিনিটে
✿➢৩৬) শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার ঘোষণা দেন- ২৬ মার্চ প্রথম প্রহরে ২৫ মার্চ রাত ১২ টার পর
✿➢৩৭) বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষণাটি ছিল – ইংরেজিতে।
✿➢৩৮) বাংলাদেশের অধিকাংশ নদীর উৎপত্তিস্থল – ভারতে
✿➢৩৯) বাংলাদেশে নদী পথের দৈর্ঘ্য – ৯৮৩৩ কিমি
✿➢৪০) সারাবছর নৌ চলাচলের উপযোগী নৌপথ – ৩,৮৬৫ কি.মি
✿➢৪১) অভ্যন্তরীন নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষ তৈরি হয়েছে – ১৯৫৮ সালে
✿➢৪২) কাপ্তাই জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকর প্রথম বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হয় – পাকিস্তান আমলে
✿➢৪৩) অভ্যন্তরীন নৌ পথে দেশের মোট বাণিজ্যিক মালামালের – ৭৫% আনা নেয়া হয়
✿➢৪৪) বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশন প্রতিষ্ঠিত হয় – ১৯৭২ সালে
✿➢৪৫) বাংলাদেশে চা চাষ হচ্ছে – উওর ও পূর্বাঞ্চলের পাহাড়ে
✿➢৪৬) সারা বছর বৃষ্টিপাত হয় – উষ্ণ ও আদ্র জরবায়ু অঞ্চলে
✿➢৪৭) বাংলাদেশে চির হরিৎ বনাঞ্চল – পার্বত্য চট্টগ্রামের বনাঞ্চল
✿➢৪৮) বাংলাদেশে খনিজ সম্পদ সমৃদ্ধ জেলা সমূহ – পূবাঞ্চলীয় পাহাড়ি জেলা সমূহ
✿➢৪৯) বাংলাদেশের লবণাক্তের পরিমাণ বেশি – দক্ষিণাঞ্চলের বেশ কিছু এলাকা
✿➢৫০) বাংলাদেশের ক্রান্তীয় চিরহরিৎ ও পত্রপতনশীল বনভূমি- দক্ষিণ পূর্ব ও উত্তর পুর্ব অংশের পাহাড়ী অঞ্চল
✿➢৫১) চিরহরিৎ বনকে বলা হয় – চির সবুজ বন
✿➢৫২) চিরহরিৎ বনভূমির পরিমাণ – ১৪ হাজার বর্গ কি.মি

সরকারি চাকরির খবর – Home   Job exam Preparation

✿➢৫৩) প্রচুচুর বাঁশ ও বেত জন্মে – সিলেটে
✿➢৫৪) রাবার চাষ হয় – পার্বত্য চট্টগ্রাম ও সিলেটে
✿➢৫৫) ক্রান্তীয় পাতাঝরা অরণ্য – ময়মনসিংহ, টাঙ্গাইল, গাজীপুর, দিনাজপুর ও রংপুর জেলায়
✿➢৫৬) শীতকালে গাছের পাতা সম্পূর্ণ ঝরে যায় – ক্রান্তীয় পাতাঝরা বনভূমির
✿➢৫৭) ক্রান্তীয় পাতাঝরা বনভূমির প্রধান বৃক্ষ – শাল
✿➢৫৮) মধুপুর ভাওয়াল বনভূমি – ময়মনসিংহ, টাঙ্গাইল ও গাজীপুরে
✿➢৫৯) দিনাজপুরে এটি – বরেন্দ্র নামে পরিচিত
✿➢৬০) স্রোতজ বনভূমি- দক্ষিণ পশ্চিমাংশের নোয়াখালী ও চট্টগ্রাম জেলার উপকূলীয় বন
✿➢৬১) স্রোতজ বনভূমি প্রধানত জন্মে – সুন্দরবনে
✿➢৬২) বাংলাদেশে স্রোতজ বা গরান বনভূমির পরিমাণ – ৪,১৯২ বর্গ কি.মি
✿➢৬৩) বাংলাদেশ সরকারে বিভাগ – ৩ টি
✿➢৬৪) আইনবিভাগের কাজ – আইন প্রনয়ন ও প্রচলিত আইনের সংশোধন
✿➢৬৫) আইন বিভাগের একটি অংশ – আইনসভা
✿➢৬৬) এপ্রিল মাসের গড় তাপমাত্রা – কক্সবাজার ২৭.৬৪ ডিগ্রী, নারায়ণগঞ্জে ২৮.৬৬ ডিগ্রী, রাজশাহীতে ৩০ ডিগ্রী
✿➢৬৭) গ্রীষ্মকালে বাংলাদেশের উপর দিয়ে বয়ে যায় – দক্ষিণ পশ্চিম মৌসুমী বায়ু
✿➢৬৮) কালবৈশাখী ঝড় আঘাত হানে – পশ্চিম ও উত্তর পশ্চিম দিক থেকে
✿➢৬৯) প্রলয়ংকারী ঘূর্ণিঝড় হয় – ১৯৯১ সালের ২৯ এপ্রিল
✿➢৭০) বাংলাদেশে বর্ষাকাল – জুন হতে অক্টোবর মাস
✿➢৭১) প্রচুর বৃষ্টিপাত হয় – জুন মাসের শেষ দিকে মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে
✿➢৭২) বর্ষাকালে আবহাওয়া সর্বদা – উষ্ণ থাকে
✿➢৭৩) বর্ষাকালে গড় উষ্ণতা – ২৭ ডিগ্রী সে.
✿➢৭৪) বর্ষাকালে সবচেয়ে বেশি গরম পড়ে – জুন ও সেপ্টেম্বর মাসে
✿➢৭৫) বাংলাদেশের মোট বৃষ্টিপাতের – ৪/৫ ভাগ হয় হয় বর্ষাকালে
✿➢৭৬) বর্ষাকালে সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন গড় বৃষ্টিপাত হয় – ৩৪০ ও ১১৯ সে.মি
✿➢৭৭) বর্ষাকালে ক্রমে বৃষ্টিপাত বেশি হয় – পশ্চিম হতে পূর্ব দিকে
✿➢৭৮) বর্ষাকালে বিভিন্ন জেলার বৃষ্টিপাতের পরিমান –পাবনায় প্রায় ১১৪, ঢাকায় ১২০, কুমিল্লায় ১৪০, শ্রীমঙ্গলে ১৮০ এবং রাঙ্গামাটিতে ১৯০ সে.মি

Join Our facebook Page

Govt. Primary School Teacher Job exam Preparation 2020

✿➢৭৯) বর্ষাকালে প্রচুর বৃষ্টিপাত হয় – মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে
✿➢৮০) বর্ষাকালে পর্বতের পাদদেশে এবং উপকূলবর্তী অঞ্চলের কোথাও বৃষ্টিপাত – ২০০ সে.মি কম হয়
✿➢৮১) বর্ষাকালে বিভিন্ন অঞ্চলের বৃষ্টিপাত – সিলেটের পাহাড়ী অঞ্চলে ৩৪০ সেমি, পটুয়াখালীতে ২০০ সেমি, চটগ্রামে ২৫০ সেমি, রাঙ্গামাটিতে ২৮০ সেমি এবং কক্সবাজারে ৩২০ সেমি।

✿➢৮২) জলবায়ু পরিবর্তনের কারনে সমুদ্রপৃষ্টের উচ্চতা প্রতি বছর গড়ে বৃদ্ধি – ৪ মিমি থেকে ৬ মিমি ( হিরন পয়েন্ট, চর চংগা, কক্সবাজার)
✿➢৮৩) গত ৪ হাজার বছরে ভূমিকম্পে পৃথিবীতে মানুষ মারা যায় – প্রায় ১ কোটি ৫০ লাখ
✿➢৮৪) ভৌগোলিক ভাবে বাংলাদেশের অবস্থান – ইন্ডিয়ান ও ইউরোপিয়ান প্লেটের সীমানায়
✿➢৮৫) বাংলাদেশে ভূমিকম্পের মানবসৃষ্ট কারন – পাহাড় কাটা
✿➢৮৬) ভূমিকম্পের ফলে সমুদ্রের পানি উপকূলে উঠে – ১৫-২০ মিটার উঁচু হয়ে
✿➢৮৭) ভূমিকম্পের ফলে সৃষ্টি হয় – সুনামি
✿➢৮৮) ইন্দোনেশিয়ায় মারাত্নক সুনামি আঘাত হানে – ২০০৪ সালের ২৬ ডিসেম্বর
✿➢৮৯) বাংলাদেশে ভূমিকম্প হয়ে থাকে – টেকটনিক প্লেটের সংঘর্ষের কারনে
✿➢৯০) বাংলাদেশের ভূমিকম্প বলয় মানচিত্র তৈরি করেছিলেন – ফরাসি ইঞ্জিনিয়ার কনসোর্টিয়াম ১৯৮৯ সালে
✿➢৯১) তিনি বলয় দেখিয়েছেন – ৩ টি
✿➢৯২) বলয়গুলোকে ভাগ করেছেন – প্রলয়ংকারী, বিপজ্জনক, লঘু
✿➢৯৩) এই বলয় সমূহকে বলা হয় – সিসমিক রিস্ক জোন
✿➢৯৪) বরেন্দ্রভূমি – নওগাঁ, রাজশাহী, বগুড়া, জয়পুরহাট, রংপুর ও দিনাজপুরের অংশ বিশেষ নিয়ে গঠিত
✿➢৯৫) বরেন্দ্রভূমির আয়তন – ৯৩২০ বর্গ কি.মি
✿➢৯৬) প্লাবন সমভূমি থেকে এর উচ্চতা – ৬ থেকে ১২ মিটার
✿➢৯৭) বরেন্দ্র অঞ্চলের মাটি – ধূসর ও লাল বর্ণের
✿➢৯৮) মধুপুর ও ভাওয়ালের সোপানের আয়তন – ৪,১০৩ বর্গ কি.মি
✿➢৯৯) সমভূমি থেকে এর উচ্চতা – ৬থেকে ৩০ মিটার
✿➢১০০) মধুপুর ও ভাওয়ালের মাটি – লালচে ও ধূসর

আরো পড়ুন:-
নতুন নিয়মে ৩৯ তম স্পেশাল বিসিএস | শুধুমাত্র এমসিকিউ-মৌখিক
১০১) লালমাই পাহাড় – কুমিল্লা শহর থেকে ৮ কি.মি পশ্চিমে
১০২) লালমাই পাহাড়ের আয়তন – ৩৪ বর্গ কি.মি
১০৩) এই পাহাড়ের উচ্চতা–২১ মিটার
১০৪) লালমাই পাহাড়ের মাটি- লালচে, এবং নুড়ি, বালি ও কংকর মিশ্রিত
১০৫) বাংলাদেশের নদী বিধৌত বিস্তীর্ণ সমভূমি – প্রায় ৮০%
১০৬) প্লাবন সমভূমির আয়তন – ১,২৪,২৬৬ বর্গ কি.মি
১০৭) প্লাবন সমভূমি – দেশের উত্তর পশ্চিমে অবস্থিত রংপুর ও দিনাজপুর জেলার অধিকাংশ
১০৮) উপকূলীয় সমভূমি – নোয়াখালী, ফেনীর নিম্নভাগ থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত
১০৯) স্রোতজ সমভূমি – খুলনা পটুয়াখালী ও বরগুনা জেলার কিয়দংশ
১১০) জনসংখ্যায় বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান – ৯ম
১১১) ২০০১ সালে জনসংখ্যা ছিল – ১২.৯৩ কোটি
(২০১৭সালে১৬৩,১৮৭,০০০ জন প্রায়)
১১২) জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ছিল – ১.৪৮%
১১৩) বর্তমানে জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার – ১.৩৭ %
১১৪) আদমশুমারি ২০১১ অনুযায়ী জনসংখ্যা – ১৪.৯৭ কোটি (১৪,৯৭,৭২,৩,৬৪জ
ন)
১১৫) প্রতি বর্গকিলোমিটারে বাস করে – ১১০৬ জন
১১৬) জনসংখ্যার ঘনত্ব সবচেয়ে কম – পার্বত্য অঞ্চল ও সুন্দরবনে
১১৭) শীত গ্রীষ্মের তারতম্য বেশী – দেশের উত্তরাঞ্চলে
১১৮) বর্তমানে মাথাপিছু জমির পরিমান – ০.২৫ একর
১১৯) বাংলাদেশের জলবায়ু – ক্রান্তীয় মৌসুমী জলবায়ু

Join Our facebook Page      Job exam Preparation 2021

১২০) বাংলাদেশে শীতকাল- নভেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারি
১২১) শীতকালে দেশের সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন তাপমাত্রা – ২৯ ডিগ্রী ও ১১ ডিগ্রী সে.
১২২) বাংলাদেশের শীতলতম মাস- জানুয়ারি
১২৩) জানুয়ারি মাসের গড় তাপমাত্রা – ১৭.৭ ডিগ্রী সে.
১২৪) জানুয়ারি মাসে সবচেয়ে কম তাপমাত্রা – দিনাজপুরে ১৬.৬
১২৫) বাংলাদেশে গ্রীষ্মকাল – মার্চ থেকে মে মাস
১২৬) গ্রীষ্মকালে সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন তাপমাত্রা – ৩৮ এবং ২১ ডিগ্রী সে.
১২৭) উষ্ণতম মাস – এপ্রিল মাস
১২৮) মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ মুসলিম লীগের দাপ্তরিক ভাষা উর্দু করার প্রস্তাব দেন – ১৯৩৭ সালে
১২৯) ব্রিটিশ শাসনের অবসান হয় – ১৯৪৭ সালের ১৪ আগষ্ট
১৩০) মুসলিম লীগের দাপ্তরিক ভাষা উর্দু করার প্রস্তাবের বিরোধীতা করেন – শেরে বাংলা এ.কে. ফজলুল হক
১৩১) চৌধুরী খালেকুজ্জামান পাকিস্তানের রাষ্ট্র ভাষা উর্দু করার দাবি করেন – ১৯৪৭ সালের ১৭ মে
১৩২) চৌধুরী খালেকুজ্জামান এর প্রস্তাবের বিরোধীতা করেন – ড.
মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ এবং ড. এনামুল হক
১৩৩) ‘ গণ আজাদী লীগ’ গঠিত হয় – ১৯৪৭ সালে কারুদ্দিন আহমদের নেতৃত্বে
১৩৪) গণ আজাদী লীগের দাবি ছিল – মাতৃভাষায় শিক্ষা দান
১৩৫) তমদ্দুন মজলিশ গঠিত হয় – ১৯৪৭ সালের ২ সেপ্টেম্বর
১৩৬) তমদ্দুন মজলিশ গঠিত হয় – অধ্যাপক আবুল কাশেমের নেতৃত্বে
১৩৭) ভাষা সংগ্রাম পরিষদ গঠন করে – তমদ্দুন মজলিশ
১৩৮) উর্দুকে পাকিস্তানের রাষ্ট্র ভাষা করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় – ১৯৪৭ সালের ডিসেম্বর মাসে
১৩৯) বাংলাকে উর্দু ও ইংরেজির পাশাপাশি পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা করার দাবি জানান – ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত ( ১৯৪৮ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি)
১৪০) সর্বদলীয় রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদ গঠিত হয় – ১৯৪৮ সালের ২ মার্চ
১৪১) বাংলা ভাষা দাবি দিবস পালনের ঘোষণা দেয় যে তারিখকে – ১৯৪৮ সালে ১১ মার্চকে
১৪২) পূর্ব পাকিস্তান মুসলিম ছাত্র লীগ ( বর্তমান ছাত্র লীগ) গঠিত হয় – ১৯৪৮ সালের ৪ জানুয়ারি
১৪৩) ৮ দফা চুক্তি স্বাক্ষরিত হয় – ১৯৪৮ সালের ১৫ মার্চ
১৪৪) ৮ দফা চুক্তি স্বাক্ষরিত হয় – মুখ্য মন্ত্রী খাজা নাজিমুদ্দিন ও রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদের মধ্যে
১৪৫) মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ রেসকোর্স ময়দানে উর্দুকে রাষ্ট্রভাষার করার কথা ঘোষণা দেন – ১৯৪৮ সালের ২১ মার্চ
১৪৬) খাজা নাজিমুদ্দিন উর্দুকে রাষ্ট্রভাষা করার ঘোষণা দেন- ১৯৫২ সালের ২৬ জানুয়ারি পল্টন ময়দানে
১৪৭) রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদ নতুন ভাবে গঠিত হয় – ১৯৫২ সালের ৩০ জানুয়ারি ( আবদুল মতিন আহবায়ক)
১৪৮) ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি কর্মসূচি পালনের পরামর্শ দেন – বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান
১৪৯) ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি – সকাল ১১ টায় সভা অনুষ্ঠিত হয়
১৫০) ২১ ফেব্রুয়ারির সভা অনুষ্ঠিত হয় – ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আমতলায়

Join Our facebook Page  Job exam Preparation 2021

Job exam Preparation 2020

এরকম আরো গুরত্বপূর্ন সব পোস্ট সাথে সাথে পেতে আমাদের ফেসবুক পেইজে দিয়ে রাখুন।
১৫১) সভায় সিদ্ধান্ত হয় – ১০ জন করে মিছিল করবে
১৫২) শহীদ শফিউর মৃত্যুবরণ করেন – ১৯৫২ সালের ২২ফেব্রুয়ারি
১৫৩) প্রথম শহীদ মিনার নির্মান করা হয় – ১৯৫২ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি ঢাকা মেডিকেল কলেজের সামনে
১৫৪) প্রথম শহীদ মিনার উদ্বোধন – ১৯৫২ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি
১৫৫) প্রথম শহীদ মিনার উদ্বোধন করেন – ভাষা শহীদ শফিউরের পিতা
১৫৬) একুশে ফ্রব্রুয়ারির উপর প্রথম কবিতা লেখেন – চট্টগ্রামের কবি মাহবুব উল আলম
১৫৭) ভাষা আন্দোলনের প্রথম কবিতার নাম – কাঁদতে
আসিনি ফাঁসির দাবি নিয়ে এসেছি
১৫৮) আলাউদ্দিন আল আজাদ রচনা করেন – স্মৃতির মিনার কবিতাটি
১৫৯) ভাষা আন্দোলনের গান – আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙ্গানো একুশে ফেব্রুয়ারি ( আব্দুল গাফফার চৌধুরী)
১৬০) আব্দুল লতিফ রচনা করেন – ওরা আমার মুখের ভাষা কাইড়া নিতে চায়
১৬১) মুনীর চৌধুরী ঢাকা জেলে বসে রচনা করেন – কবর নাটক
১৬২) জহির রায়হান রচনা করেন – আরেক ফাল্গুন উপন্যাস
১৬৩) বাংলাকে পাকিস্তানের সংবিধানে অন্তর্ভুক্ত করে – ১৯৫৬ সালে
১৬৪) বাঙ্গালীর পরিবর্তী সব আন্দোলনের প্ররণা দিয়েছিল – ১৯৫২ সালের
ভাষা আন্দোলন

১৬৫) শহীদ দিবস পালন শুরু হয় – ১৯৫৩ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি থেকে
১৬৬) শহীদ দিবসকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ঘোষণা করে – UNESCO
১৬৭) ইউনেস্কো আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ঘোষণা করে – ১৯৯৯ সালের ১৭ নভেম্বর
১৬৮) পৃথিবীতে ভাষা রয়েছে – ৬০০০ এর বেশি
১৬৯) পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগ গঠিত হয় – ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন
১৭০) গঠনের স্থান – ঢাকার রোজ গার্ডেন
১৭১) সভাপতি ছিলেন – মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী
১৭২) সাধারণ সম্পাদক ছিলেন – শামসুল হক ( টাঙ্গাইল)
১৭৩) যুগ্ন সম্পাদক ছিলেন – শেখ মুজিবুর রহমান
১৭৪) ১৯৫৪ সালের যুক্তফ্রন্ট গঠনের উদ্যোগ ছিল – আওয়ামী লীগের
১৭৫) পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী লীগ নামকরন করা হয় – ১৯৫৫ সালে
১৭৬) যুক্তফ্রন্ট গঠনের সিদ্ধান্ত হয় – ১৯৫৩ সালের ১৪ নভেম্বর
১৭৭) যুক্তফ্রন্ট গঠিত হয় – ৪ টি দল নিয়ে
১৭৮) যুক্তফ্রন্টের ইশতেহার ছিল – ২১ টা
১৭৯) প্রাদেশিক পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় – ১৯৫৪ সালের মার্চে
১৮০) পূর্ব বাংলার প্রাদেশিক পরিষদের আসনছিল – ২৩৭ টি
১৮১) যুক্তফ্রন্ট আসন লাভ করে – ২২৩ টি
১৮২) ২১ দফার প্রথম দফা ছিল – বাংলাকে পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্রভাষা করা
১৮৩) যুক্তফ্রন্টের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ গ্রহন করেন – এ.কে ফজলুল হক ( ১৯৫৪ সালের ৩ এপ্রিল)
১৮৪) যুক্তফ্রন্ট সরকার ক্ষমতায় ছিল – ৫৬ দিন
১৮৫) যুক্তফ্রন্ট সরকারকে বরখাস্ত করে – ১৯৫৪ সালের ৩০ মে
১৮৬) বরখাস্ত করেন – গভর্নর জেনারেল গোলাম মোহাম্মদ
১৮৭) বরখাস্তের ইস্যু ছিল – আদমজি ও কর্ণফুলি কাগজ কলে বাঙ্গালিঅবাঙ্গা\
লি দাঙ্গা।

Job exam Preparation 2021

১৮৮) বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষণা প্রচার করা হয় – ইপিআর ট্রান্সমিটার, টেলিগ্রাম ও টেলিপ্রিন্টারের মাধ্যমে
১৮৯) বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার ঘোষণা চট্টগ্রাম থেকে প্রচার করেন – ২৬ মার্চ দুপুর ও সন্ধ্যায় এম, এ, হান্নান
১৯০) মেজর জিয়াউর রহমান স্বাধীনতার ঘোষণা পত্র পাঠ করেন – ২৭ মার্চ সন্ধ্যায় চট্টগ্রামের কালুর ঘাট বেতার কেন্দ্র থেকে
১৯১) বাঙ্গালী পাকিস্তানের শাসনের অধীনে ছিল- ২৪ বছর
১৯২) মেহেরপুর জেলার অন্তর্গত – বৈদ্যনাথ তলাএবং আম্রকানন
১৯৩) বৈদ্যনাথ তলার বর্তমান নাম – মুজিবনগর
১৯৪) মুজিবনগর সরকার গঠিত হয় – ১৯৭১ সালের ১০ এপ্রিল
১৯৫) বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা আদেশ আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষিত হয় – ১৯৭১ সালের ১০ এপ্রিল
১৯৬) মুজিবনগর সরকার শপথ গ্রহন করে – ১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল
১৯৭) মুজিব নগর সরকারের রাষ্ট্রপতি ও মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক – বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান
১৯৮) উপরাষ্ট্রপতি – সৈয়দ নজরুল ইসলাম
১৯৯) প্রধান মন্ত্রী – তাজ উদ্দীন আহমেদ
২০০) অর্থমন্ত্রী – এম. মনসুর আহমদ
❍☞২০১)মুজিবনগর সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী – এ.এইচ. এম. কামারুজ্জামান
❍☞ ২০২) মুজিবনগর সরকারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী – খন্দকার মোশতাক আহমেদ
❍☞২০৩) মুজিব নগর সরকারের শপথবাক্য পাঠ করান – অধ্যাপক ইউসুফ আলী
❍☞২০৪) মুক্তিযুদ্ধের প্রধান সেনাপতি ছিলেন – কর্ণেল ( অব.) এম.এ. জি ওসমানী
❍☞২০৫) মুজিব নগর সরকারের প্রধান উদ্দেশ্য ছিল – মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনা ও বাংলাদেশের পক্ষে বিশ্বে জনমত সৃষ্টি করা
❍☞২০৬) মুজিবনগর সরকারের মন্ত্রনালয় ছির – ১২ টি
❍☞২০৭) মুজিবনগর সরকারের বিশেষ দূত ছিলেন – বিচারপতি আবু সাঈদ চৌধুরী
❍☞২০৮) বাংলাদেশে কয়টি সামরিক জোনে ভাগ করা হয় – ৪ টি ( ১৯৭১ সাল ১০ এপ্রিল)
❍☞২০৯) ৪ সামরিক জোনে ছিলেন – ৪ জন সেক্টর কমান্ডার
❍☞২১০) ১১ এপ্রিল পুনঃরায় ভাগ করা হয় – ১১ টি সেক্টরে
❍☞২১১) মুক্তিযুদ্ধের ব্রিগেড ফোর্স ছিল – ৩ টি
❍☞২১২) কাদেরীয়া বাহিনী ছিল – টাঙ্গাইলের
❍☞২১৩) ইপিআর – ইষ্ট পাকিস্তান রাইফেল
❍☞২১৪) বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধকে বলা যায় – গণযুদ্ধ বা জনযুদ্ধ
❍☞২১৫) ভারতে শরার্থী ছিল – ১ কোটি
❍☞২১৬) বুদ্ধিজীবীদের হত্যাকরা হয় – ১৯৭১ সালের ১৪ ডিসেম্বর
❍☞২১৭) ১১ দফা আন্দোলন হয়েছিল – ১৯৬৮ সালে
❍☞২১৮) ১৯৭১ সালের মার্চ মাসে চলছিল – বঙ্গবন্ধুর অসহযোগ আন্দোলন
❍☞২১৯) মুজিবনগর সরকারের অধীনে ” পরিকল্পনা সেল ” গঠন করে – পেশাজীবীরা
❍☞২২০) মুক্তিযুদ্ধে সম্ভ্রম হারান – প্রায় তিন লক্ষ নারী
❍☞২২১) স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র চালু করেন – চট্টগ্রাম বেতারের শিল্পী ও সংস্কৃতিনকর্মীরা
❍☞২২২) ভারত বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেয় – ৬ ডিসেম্বর১৯৭১
❍☞২২৩) মুক্তি বাহিনী ও ভারতীয় বাহিনী মিলে গঠিত হয় – যৌথ কমাণ্ড
❍☞২২৪) মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে বহির্বিশ্বে প্রচারের প্রধান কেন্দ্র ছিল – লন্ডন
❍☞২২৫) কনসার্ট ফর বাংলাদেশ এর শিল্পী ছিলেন – জর্জ হ্যারিসন
❍☞২২৬) কনসার্ট ফর বাংলাদেশ অনুষ্ঠিত হয় – যুক্তরাষ্ট্রর নিউইয়র্ক শহরে ( ৪০০০০ লোক ছিল)
❍☞২২৭) স্বাধীন বাংলাদেশ সরকার ক্ষমতা গ্রহন করে – ১৯৭১ সালের ২২ ডিসেম্বর
❍☞২২৮) বঙ্গবন্ধু দেশে ফিরে আসেন – ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি
❍☞২২৯) অস্থায়ী সংবিধান আদেশ জারি করা হয় – ১৯৭২ সালের ১১ জানুয়ারি
❍☞২৩০) অস্থায়ী সংবিধান আদেশ জারি করেন – বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান
❍☞২৩১) গণপরিষদের প্রথম অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয় – ১৯৭২ সালের ১০ এপ্রিল
❍☞২৩২) সংবিধান প্রনয়ণ কমিটির সদস ছিলেন – ৩৪ জন
❍☞২৩৩) সংবিধান কমিটি খসড়া সংবিধান পেশ করেন – ১৯৭২ সালের ১২ অক্টোবর
❍☞২৩৪) সংবিধান গণ পরিষদে গৃহীত হয় – ১৯৭২ সালের ৪ নভেম্বর
❍☞২৩৫) বাংলাদেশের সংবিধান কার্যকর হয় – ১৯৭২ সালের ১৬ ডিসেম্বর থেকে
❍☞২৩৬) সংবিধানের মূলনীতি – ৪ টি
❍☞২৩৭) বাংলাদেশ গণ পরিষদ আদেশ জারি করা হয় – ১৯৭২ সালের ২৩ মার্চ
❍☞২৩৮) বাংলাদেশের প্রথম শিক্ষা কমিশন – ড. কুদরত এ খুদা কমিশন
❍☞২৩৯) বাংলাদেশের প্রথম সাধারন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় – ১৯৭৩ সালের ৭ মার্চ
❍☞২৪০) বাংলাদেশের পররাষ্ট্র নীতি ছিল – সকলের সাথে বন্ধুত্ব, কারো সাথে শত্রুতা নয়
❍☞২৪১) প্রথম দিকে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দান করে – ১৪০ টি দেশ
❍☞২৪২) চট্টগ্রাম বন্দরের মাইনমুক্ত করার বিষয়ে সহযোগিতা করে – সোভিয়েত ইউনিয়ন
❍☞২৪৩) ভারতীয় বাহিনী বাংলাদেশ ছাড়ে – ১৯৭২ সালের মার্চে
❍☞২৪৪) বাংলাদেশ কমনওয়েলথের সদস্য হয় – ১৯৭২ সালে

Join Our facebook Page           Job exam Preparation 2021

❍☞২৪৫) জাতিসংঘের সদস্যপদ লাভ করে – ১৯৭৪ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর
❍☞২৪৬) জাতি সংঘের সাধারণ অধিবেশনে সর্বপ্রথম বাংলায় ভাষণ দেন – বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান
❍☞২৪৭) বঙ্গবন্ধু পুরষ্কার পান – জুলিও কুরি শান্তি পদক
❍☞২৪৮) জুলিও কুরি পদক দেয় – বিশ্বশান্তি পরিষদ
❍☞২৪৯) সংবিধান কমিটির প্রধান ছিলেন – ড. কামাল হোসেন
❍☞২৫০) সংবিধান প্রণয়ণ কমিটিতে মহিলা সদস্য ছিলেন – ১ জন
✺ ২৫১) বাংলাদেশের সংবিধান প্রনয়ণে সময় লাগে – ১০ মাস
✺ ২৫২) বাংলাদেশ সংবিধান – লিখিত ও দুষ্পরিবর্তনীয়
✺ ২৫৩) সংবিধানে ন্যায়পাল সৃষ্টির কথা বলা হয়েছে – ৭৭ নং অনুচ্ছেদে
✺ ২৫৪) বীরঙ্গনাদের সরকার ” নারী মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি দেয় – ২০১৬ সালের ২৯ জানুয়ারি
✺ ২৫৫) সর্বজনীন ভোটাধিকারের নীতি – এক ব্যক্তি এক ভোট নীতি
✺ ২৫৬) সুপ্রীম কোর্ট বাতিল করে সংবিধানের – ৫ম, ৭ম ও ১৩ দশ সংশোধনী
✺ ২৫৭) জাতীয় শোক দিবস – ১৫ আগষ্ট
✺ ২৫৮) বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করা হয় – ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট
✺ ২৫৯) জাতীয় ৪ নেতাকে গ্রেপ্তার করা হয় – ১৯৭৫ সালে ২২ আগষ্ট
✺ ২৬০) রাজনৈতিক দল ও কার্যকলাপ নিষিদ্ধ করা হয় – ১৯৭৫ সালের ৩১ আগষ্ট
✺ ২৬১) ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ জারি করেন – খন্দকার মোশতাক আহমেদ
✺ ২৬২) ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ জারি করা হয় – ১৯৭৫ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর
✺ ২৬৩) খালেদ মোশাররফ এর নেতৃত্বে সেনা অভ্যুথান হয় -১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর
✺ ২৬৪) জাতীয় ৪ নেতাকে হত্যা করা হয় – ১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর
✺ ২৬৫) বাংলাদেশে সেনা শাসন আমল – ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্টের পর থেকে ১৯৯০ পর্যন্ত
✺ ২৬৬) গণতন্ত্রের যাত্রা শুরু হয় – ১৯৯১ সালে
✺ ২৬৭) জিয়াউর রহমান সেক্টর কমান্ডার ছিলেন – ২ নং সেক্টরের
✺ ২৬৮) জিয়াউর রহমান রাষ্ট্রপতি পদে অধিষ্ঠিত হন – ১৯৭৭ সালের ২১ এপ্রিল
✺ ২৬৯) রাষ্টপতি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় – ১৯৭৮ সালের ৩ জুন
✺ ২৭০) বাংলাদেশের ২য় জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় – ১৯৭৯ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি
✺ ২৭১) সংবিধানের ৫ম সংশোধনী অবৈধ বলে সুপ্রীম কোর্ট রায় দেন – ২০০৮ সালে
✺ ২৭২) সার্ক গঠনের উদ্যেগক্তা – জিয়াউর রহমান
✺ ২৭৩) রাষ্টপতি জেনারেল জিয়াউর রহমান নিহত হন – ১৯৮১ সালের ৩১ মে
✺ ২৭৪) জিয়াউর রহমানের সামরিক শাসন ছিল – সাড়ে ৫ বছর
✺ ২৭৫) জেনারেল এরশাদ রাষ্টপতি হন – ১৯৮৩ সালের ১১ ডিসেম্বর
✺ ২৭৬) রাষ্টপতি এরশাদ রাজনৈতিক কার্যক্রম নিষিদ্ধ করেন – ১৯৮২ সালের ২৪ মার্চ
✺ ২৭৭) সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে প্রথম বিক্ষোভ হয় – ১৯৮৩ সালে
✺ ২৭৮) গণ আন্দোলন হয় – ১৯৯০ সালে
✺ ২৭৯) জেনারেল এরশাদ পদত্যাগ করেন – ১৯৯০ সালের ৬ ডিসেম্বর
✺ ২৮০) এরশাদ ক্ষমতা দখল করেন – ১৯৮২ সালের ২৪ মার্চ
✺ ২৮১) ঘরোয়া রাজনীতির অনুমতি দেয়া হয় – ১৯৮৩ সালের ১ এপ্রিল
✺ ২৮২) ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় – ১৯৮৩ সালে
✺ ২৮৩) পৌরসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় – ১৯৮৪ সালে
✺ ২৮৪) এরশাদ গণভোটের আয়োজন করেন – ১৯৮৫ সালের ২১ মার্চ
✺ ২৮৫) উপজেলা পদ্ধতি চালু করেন – এরশাদ
✺ ২৮৬) উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় – ১৯৮৫ সালের ১৬ ও ২১ মে
✺ ২৮৭) বাংলাদেশের ৩য় জাতীয় সংসদ নির্বাচন হয় – ১৯৮৬ সালের ৭ মে
✺ ২৮৮) ৪র্থ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আয়োজন করা হয় – ১৯৮৮ সালের ৩ মার্চ
✺ ২৮৯) জেনারেল এরশাদের শাসন আমল – ৯ বছর
✺ ২৯০) প্রথম গণতান্ত্রিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় – ১৯৯১ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি
✺ ২৯১) নুর হোসেন শহীদ হন – স্বৈরাচার বিরোধি আন্দোলন ১৯৮৭ সালের ১০ নভেম্বর
✺ ২৯২) এরশাদ জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেন – ১৯৮৭ সালের ২৭ নভেম্বর

Join Our facebook Page              Job exam Preparation 2021

✺ ২৯৩) সর্বদলীয় ছাত্র ঐক্য গঠন করা হয় – ১৯৯০ সালের ১০ অক্টোবর ( ২২ টি ছাত্র সংগঠন)
✺ ২৯৪) ডা. সামসুল আলম মিলন গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান – ১৯৯০ সালের ২৭ নভেম্বর
✺ ২৯৫) ৫ম জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় – ১৯৯১ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি
✺ ২৯৬) তত্ববধায়ক সরকারে বিল সংসদে পাশ হয় – ১৯৯৬ সালের ২৬ মার্চ
✺ ২৯৭) তত্তবধায়ক সরকারের প্রথম প্রধান উপদেষ্টা ছিলেন – বিচারপতি হাবিবুর রহমান
✺ ২৯৮) তত্ববধায়ক সরকারের অধীনে প্রথম নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় – ১২ জুন ১৯৯৬ সালে ( ৭ম জাতীয় নির্বাচন)
✺ ২৯৯) ৮মম জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় – ২০০১ সালের ১ অক্টোবর
✺ ৩০০) বাংলাদেশে ১/ ১১ এর সময় কাল – ২০০৭ সাল

❑➫৩০১) ৮ম জাতীয় সংসদ নির্বাচন হয় – ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর
❑➫৩০২) ১৯৭২ সালে বাংলাদেশের দারিদ্র্যের হার ছিল – ৭০%
❑➫৩০৩) ৪০ বছরে দারিদ্যের হার কমেছে – ৩০%
❑➫৩০৪) ৪ দশকে শিশু মৃত্যু হার কমেছে -প্রতি হাজারে ১৮৫ থেকে ৪৮
❑➫৩০৫) বাংলাদেশের প্রথম জাতীয় শিক্ষানীতি প্রনীত হয় – ২০১০ সালে
❑➫৩০৬) পারিবারিক সংহিংসতা ও সুরক্ষা আইন – ২০১০ সালে প্রণীত হয়
❑➫৩০৭) জাতীয় খাদ্য নীতি – ২০০৬ সালে
❑➫৩০৮) জাতীয় শিশু নীতি প্রণীত হয় – ২০১১ সালে
❑➫৩০৯) জাতীয় শিশু নীতি ২০১১ অনুযায়ী শিশু বলে বিবেচিত হবে -১৮ বছরের কম বয়সী সব ব্যক্তি
❑➫৩১০) বাংলাদেশ পলল গঠিত – আদ্র অঞ্চল
❑➫৩১১) বাংলাদেশের পাহাড়ী অঞ্চল – উত্তর পূর্ব ও দক্ষিণ পূর্বে
❑➫৩১২) উঁচু ভুমির অবস্থান – উত্তর পশ্চিমাংশে
❑➫৩১৩) বাংলাদেশের ভূ প্রকৃতি – নিচু ও সমতল
❑➫৩১৪) দক্ষিণ এশিয়ার বড় নদী – ৩ টি( গঙ্গা, ব্রক্ষপুত্র, মেঘনা)
❑➫৩১৫) বাংলাদেশের অবস্থান – এশিয়া মহাদেশের দক্ষিণে
❑➫৩১৬) বাংলাদেশের অবস্থান – ২০.৩৪“ উত্তর অক্ষরেখা থেকে ২৬.৩৮” উত্তর অক্ষরেখার মধ্যে
❑➫৩১৭) দ্রাঘিমা রেখা – ৮৮.০১” থেকে ৯২.৪১” পূর্ব দ্রাঘিমা
❑➫৩১৮) বাংলাদেশের মাঝামাঝি দিয়ে অতিক্রম করেছে – কর্কটক্রান্তি রেখা ( ২৩.৫”)
❑➫৩১৯) বাংলাদেশের উত্তরে – পশ্চিমবঙ্গ, মেঘালয়, আসাম
❑➫৩২০) পূর্বে – আসাম, ত্রিপুরা, মিজোরাম,মায়ানমার
❑➫৩২১) দক্ষিণে – বঙ্গোপসাগর
❑➫৩২২) মোট আয়তন – ১,৪৭,৬১০ কি.মি.।
❑➫৩২৩) পৃথিবীর বৃহত্তম ব দ্বীপ – বাংলাদেশ
❑➫৩২৪) বাংলাদেশের ভু খন্ড – উত্তর থেকে দক্ষিণে ঢালু
❑➫৩২৫) বাংলাদেশের প্রায় সমগ্র অঞ্চল – এক বিস্তীর্ন সমভূমি
❑➫৩২৬) ভূ প্রকৃতির ভিত্তিতে বাংলাদেশ ভাগ করা হয় – ৩ টি শ্রেণীতে
❑➫৩২৭) টারশিয়ারে যুগের পাহাড়সমূহ – মোট ভূমির প্রায় ১২%
❑➫৩২৮) হিমালয় পর্বত উথিত হয় – টারশিয়ারি যুগে
❑➫৩২৯) দক্ষিণ পূর্বাঞ্চলের পাহাড় সমূহ – রাঙ্গামাটি, বান্দরবান, খাগড়াছড়ি, কক্সবাজার এবং চট্টগ্রামের পূর্বাংশ
❑➫৩৩০) দক্ষিণ পূর্বাঞ্চলের পাহাড়গুলোর উচ্চতা – ৬১০ মিটার
❑➫৩৩১) বাংলাদেশের সর্বোচ্চ শৃঙ্গ – তাজিনডং ( বিজয়)
❑➫৩৩২) বিজয়ের উচ্চতা – ১২৩১ মিটার
❑➫৩৩৩) বিজয় – বান্দরবানে অবস্থিত
❑➫৩৩৪) বাংলাদেশের ২য় সর্বোচ্চ শৃঙ্গ – কিওক্রাডং( ১২৩০ মি)
❑➫৩৩৫) আরো দুটি পাহাড় – মোদকমুয়াল ( ১০০০মি.), পিরামিড( ৯১৫মি)
❑➫৩৩৬) এই পাহাড় গুলো গঠিত – বেলে পাথর, কর্দম, শেল পাথর দ্বারা
❑➫৩৩৭) উত্তর উত্তরপূর্বাঞ্চলের পাহাড়সমূহ – ময়মনসিংহ, নেত্রকোনার উত্তরাংশ, সিলেটের উত্তর উত্তর পূর্বাংশ, মৌলভী বাজার, হবিগঞ্জের দক্ষিনের পাহাড়
❑➫৩৩৮) পাহাড় গুলোর উচ্চতা – ২৪৪ মিটার
❑➫৩৩৯) উত্তরের পাহাড়গুলো – টিলা নামে পরিচিত
❑➫৩৪০) টিলার উচ্চতা – ৩০ থেকে ৯০ মিটার
❑➫৩৪১) এ অঞ্চলের পাহাড় সমূহ – চিকনাগুল, খাসিয়া, জয়ন্তিয়া
❑➫৩৪২) প্লাইস্টোসিন কালের সোপান – দেশের মোট ভূমির ৮% নিয়ে গঠিত
❑➫৩৪৩) প্লাইস্টোসিন কাল বলা হয় – আনুমানিক ২৫,০০০ বছর পূর্বের সময়কে
❑➫৩৪৪) প্লাইস্টোসিন কালের সোপিনসমূহ – ৩ ভাগে বিভক্ত
❑➫৩৪৫) বাংলাদেশে ছোট বড় নদী রয়েছে -৭০০ টি
❑➫৩৪৬) নদীর গুলোর আয়তন দৈর্ঘ্যে – ২২,১৫৫ কি.মি
❑➫৩৪৭) পদ্মা নদী ভারতে পরিচিত – গঙ্গা নামে
❑➫৩৪৮) পদ্মা নদীর উৎপত্তিস্থল – হিমালয়ের গাঙ্গোত্রী হিমবাহে
❑➫৩৪৯) গঙ্গা বাংলাদেশে প্রবেশ করে – রাজশাহী জেলা দিয়ে
❑➫৩৫০) পদ্মা নদী যমুনার সাথে মিলিত হয় – গোয়ালন্দে
■➢৩৫১) ব্রক্ষপুত্রের প্রধান ধারা – যমুনা নদী
■➢৩৫২) পদ্মা নদী মেঘনার নাথে মিলিত হয় – চাঁদপুরে

সরকারি চাকরির খবর – Home   Job exam Preparation

■➢৩৫৩) গঙ্গা পদ্মা বিধৌত অঞ্চলের পরিমান – ৩৪, ১৮৮ বর্গ কি.মি
■➢৩৫৪) পদ্মার শাখা নদী সমূহ – ভাগীরথী, হুগলি, মাথাভাঙ্গা, ইছামতি, ভৈরব, কুমার, কপোতাক্ষ, নবগঙ্গা, চিত্রা, মধুমতী, আড়িয়াল খাঁ
■➢৩৫৫) ব্রক্ষপুত্রের উৎপত্তি – তিব্বতের মানস সরোবর
■➢৩৫৬) বক্ষপুত্র নদী বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে – কুড়িগ্রাম জেলার মধ্য দিয়ে
■➢৩৫৭) ১৭৮৭ সালের আগে ব্রক্ষপুত্রের প্রধান ধারাটি প্রবাহিত হতো – ময়মনসিংহের মধ্যে দিয়ে উত্তর পশ্চিম থেকে দক্ষিণ পূর্বে
■➢৩৫৮) ব্রক্ষপুত্র নদের গতি পরিবর্তিত হয় – ১৭৮৭ সালের ভূমিকম্পে
■➢৩৫৯) যমুনা নদীর শাখা নদী – ধলেশ্বরী
■➢৩৬০) ধলেশ্বরী নদীর শাখা নদী – বুড়িগঙ্গা
■➢৩৬১) যমুনা নদীর উপনদী সমূহ – ধরলা, তিস্তা, করতোয়া, আত্রাই
■➢৩৬২) গঙ্গার সঙ্গমস্থল পর্যন্ত ব্রক্ষপুত্রের দৈর্ঘ্য – ২৮৯৭ কি.মি এবং আয়তন – ৫,৮০,১৬০ বর্গ কি.মি এবং এর ৪৪,০৩০ বর্গ কি.মি বাংলাদেশের
■➢৩৬৩) সুরমা ও কুশিয়ারা নদী মিলনে উৎপত্তি – মেঘনা নদী
■➢৩৬৪) সুরমা ও কুশিয়ার উৎপত্তি- আসামের বরাক নদী নাগা- মণিপুর অঞ্চলে
■➢৩৬৫) সুরমা ও কুশিয়ারা নদী বাংলাদেশে প্রবেশ করে – সিলেট জেলা দিয়ে
■➢৩৬৬) সুরমা ও কুশিয়ারা নদী মিলিত হয় – সুনামগঞ্জের আজমিরিগঞ্জে এবং কালনী নামে দক্ষিণ পশ্চিমে অগ্রসর হয়ে মেঘনা নাম ধারন করে
■➢৩৬৭) মেঘনা পুত্রের সাথে মিলিত হয় – ভৈরব বাজারের কাছে
■➢৩৬৮) বুড়িগঙ্গা, ধলেশ্বরী, ও শীতলক্ষ্যা মেঘনার সাথে মিলিত হয় – মুন্সিগঞ্জে
■➢৩৬৯) মেঘনার শাখা নদী – মুন, তিতাস, গোমতী, বাউলাই।
■➢৩৭০) বাংলাদেশের দক্ষিণ পূর্বাঞ্চলের প্রধান নদী – কর্ণফুলী
■➢৩৭১) কর্ণফুলি নদীর উৎপত্তি – লুসাই পাহাড়ে

■➢৩৭২) কর্ণফুলির দৈর্ঘ্য – ৩২০ কি.মি
■➢৩৭৩) কর্ণফুলির প্রধান উপনদী – কাপ্তাই, হালদা, কাসালাং, রাঙখিয়াং
■➢৩৭৪) বাংলাদেশের প্রধান সমুদ্র বন্দর – চট্টগ্রাম কর্ণফুলির তীরে অবস্থিত
■➢৩৭৫) তিস্তা নদীর উৎপত্তি – সিকিমের পার্বত্য অঞ্চল
■➢৩৭৬) তিস্তা নদী – ভারতের জলপাইগুড়ি ও দার্জিলিং হয়ে ডিমলা অঞ্চল দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করে
■➢৩৭৭) তিস্তা নদীরর গতিপথ পরিবর্তিত হয় – ১৯৮৭ সালের বন্যায়

All Job exam Preparation 2021